‘অঞ্জুর কলকাতায় থাকার জন্য আমি দায়ী’

প্রকাশিত: ৩:৪৭ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৮ | আপডেট: ৩:৪৭:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৮

ঢাকাই চলচ্চিত্রের একসময়কার তুমুল জনপ্রিয় নায়িকা অঞ্জু ঘোষ। দেশের সবচেয়ে সফল ছবির নায়িকাও তিনি। আশির দশকে কাপিয়েছেন রূপালি পর্দা। তবে হঠাত করেই দেশ ছেড়ে ভারতের কলকাতায় পাড়ি জমান অঞ্জু ঘোষ। সেখানে গিয়ে একেবারে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে থাকেন। একটিবারের জন্যও বাংলাদেশে আসেননি। কলকাতার সিনেমা ও মঞ্চের কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েন।

মূলত মায়ের ডাকে সাড়া দিয়েই অঞ্জু ঘোষ কলকাতা যান। পরে তার মায়ের অনুরোধেই সেখানে থেকে যান। তারপর কেটে যায় দীর্ঘ ২২ বছর।

তবে অঞ্জু ঘোষের কলকাতায় থেকে যাওয়ার দায়ভার কাঁধে তুলে নিলেন ঢাকাই ছবির আরেক নায়িকা অঞ্জনা। রোববার (৯ সেপ্টেম্বর) অঞ্জনা বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, অঞ্জুর প্রথম ছবিই আমার সঙ্গে। আমি সেদিনই ওর গালে হাত রেখে বলেছিলাম, এই মেয়ে ইন্ডাস্ট্রি মাতাবে। ঠিক সেটাই হয়েছে।

অঞ্জু ঘোষের কলকাতায় চলে যাওয়া ও সেখানে সেটেলড হয়ে যাওয়া প্রসঙ্গে অঞ্জনা বলেন, আসলে অঞ্জুর কলকাতায় থাকার জন্য আমিই অনেকটা দায়ী। আমি সেই সময় একটা ছবি প্রযোজনা করেছিলাম কলকাতার সঙ্গে। ছবির নাম ‘প্রাণ সজনী’। সেই ছবিতে অভিনয় করার পর অঞ্জু কলকাতায় অনেক জনপ্রিয়তা পেয়ে যায়। এবং একের পর এক ছবিতে প্রস্তাব পেতে থাকে। এর ফলে সেখানে তার ব্যস্ততাও বেড়ে যায়। হয়ত এজন্যই আর দেশে ফিরতে পারেনি অঞ্জু।

এদিন বিকালে বিএফডিসির চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয় একটি সংবাদ সম্মেলন। দীর্ঘ ২২ বছর পর অঞ্জু ঘোষ দেশে ফেরায় তাকে বরণ করে নেয় সংগঠনটি। এসময় উপস্থিত ছিলেন অঞ্জু ঘোষ অভিনীত ‘বেদের মেয়ে জোসনা’ ছবির নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন, শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর, সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান, অভিনেতা আহমেদ শরীফ প্রমুখ।