অপরাধ মোকাবিলায় সিবিআইয়ের সাহায্য চায় বাংলাদেশ

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১:৩৮ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৭, ২০১৯ | আপডেট: ১১:৩৮:পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৭, ২০১৯
সংগৃহীত

বৃহস্পতিবার সকালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠক করবেন বাংলাদেশের নতুন পররাষ্ট মন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমিন। পররাষ্ট মন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব নেওয়ার পরে এটাই তাঁর প্রথম বিদেশ সফরও।

বাংলাদেশে ফের প্রধানমন্ত্রী পদে শপথ নেওয়ার পর শেখ হাসিনার তরফে বার্তা নিয়ে নয়াদিল্লি আসছেন তিনি। নিজের পররাষ্ট মন্ত্রীকে প্রথম ভারতে পাঠিয়ে প্রতিবেশী দেশ সম্পর্কে নিজের অবস্থান আরও একবার স্পষ্ট করে দিলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা।

মোমিনের সঙ্গে বাংলাদেশ বিদেশমন্ত্রকের উচ্চপর্যায়ের একটি প্রতিনিধি দলও রয়েছে। শুক্রবার পর্যন্ত মোমিন দিল্লিতে থাকবেন। প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়, পররাষ্ট মন্ত্রী সুষমা স্বরাজ ও রাজ্যসভার বিরোধী দলনেতা গুলাম নবি আজাদের সঙ্গেও বৈঠক করতে পারেন তিনি।

শুক্রবার দিল্লিতে ভারত-বাংলাদেশ যৌথ পরামর্শ কমিটির পঞ্চম বৈঠক হবে। মোমিনের সফরে দুই দেশের মধ্যে বেশ কিছু চুক্তি সই হবে। বাংলাদেশের দুর্নীতি দমন কমিশন ভারতের তদন্তকারী সংস্থা সিবিআইয়ের সঙ্গে একটি সহযোগিতা চুক্তি করতে পারে।
Add Image
বর্তমানে অপরাধের ধরন পালটে গিয়েছে। তদন্ত প্রক্রিয়াও দিনদিন জটিল হয়ে উঠছে। এক দেশে অপরাধ করে, গা ঢাকা দিতে অন্য দেশে পালিয়ে যাওয়ার প্রবণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই নতুন ধরনের অপরাধের মোকাবিলা করতেই সেদেশের তদন্ত সংস্থা এদেশের সিবিআইয়ের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধতে চাইছে।

এছাড়াও কেন্দ্রীয় আয়ুষ মন্ত্রকের সঙ্গে বাংলাদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রক একটি চুক্তি করবে। বিকল্প চিকিৎসার চাহিদা ক্রমবর্ধমান। সেই কথা মাথায় রেখেই এই চুক্তি করতে চলেছে বাংলাদেশ।

এছাড়াও বাংলাদেশের আমলাদের ভারতে প্রশিক্ষণ দেওয়া সংক্রান্ত ও প্রসার ভারতীর সঙ্গে বাংলাদেশ টেলিভিশনের চুক্তিও মোমিনের এই সফরে স্বাক্ষরিত হবে বলেই জানা গিয়েছে। মোমিন বুধবার সন্ধ্যায় কলকাতা বিমানবন্দরে নামেন।

সেখানে তাঁকে স্বাগত জানান কলকাতার উপ রাষ্ট্রদূত তৌফিক হোসেন, বি এম জামাল, মনসুর আলম বিপ্লব, মোফৎকার ইকবাল, শেখ শাফিনুল হক। পশ্চিমবঙ্গ তথা ভারতের সর্বশেষ রাজনৈতিক পরিস্থিতি সম্পর্কে কলকাতার দূতাবাসের কর্তাদের কাছে খবর নেন ওপার বাংলার নয়া পররাষ্ট মন্ত্রী।