অভ্র কাঁদছো কেন?

প্রকাশিত: ৯:৫০ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৭, ২০২০ | আপডেট: ৯:৫০:অপরাহ্ণ, জুলাই ১৭, ২০২০
মুহাম্মদ হাবীবুল্লাহ হেলালী

অভ্র! আজি এতো করে কাঁদছো কেন
কি হল তোমার?
কতটা বছর গত হল তোমার এমন কান্না শুনিনি,
সেই কবে কেঁদেছিলে শেষবারের মতন
আবার সেই কান্না তোমার, সেই আগের মতোই গর্জন।
এমন কী হল যে, তোমায় এমন করে কাঁদতে হবে!
কে কী বললো তোমায় বলো দেখি অভ্র!
তোমার নীল আঁচলের ছায়াতলেই
তো আমাদের বসবাস,
এ বাঁধন ছিড়ে গেলে যাবো কোথায় বলো।
বলে দিলুম! এ মায়াবী বন্ধন ছেড়ে যাবার
কোন ইচ্ছে নেই আমার।
তবুও এভাবে ইচ্ছে করে ঠেলে দিতে চাইছো কেন?
কী হল, কেনইবা আজ এত অশান্ত হয়ে ওঠলে
কিছুতেই থামছেনা তোমার কান্না,
জানতে পারি কার জন্য কাঁদছো তুমি,
কিই বা তোমার কষ্ট!
অভ্র আমাদের নিয়েই তো তোমার বসবাস।
আমরাই তোমার সুখে-দুঃখের সাথী,
তবে আজ এতটা অভিমানী কেন তুমি!
আমি আর পারছিনা তোমায় নিয়ে,
এদিকে তোমার হাকডাক আর ঘনঘন গর্জনে
সবাই ভীতসন্ত্রন্ত হয়ে ঘরবন্দি হয়ে পড়েছে।
তোমার কান্নায় ভেসে আসা থই থই জলের শব্দে
রাতে ঘুমন্ত শিশুরাও আঁতকে উঠছে।
আমি আর কত শান্তনা দিতে পারি বল!
তুমি কাঁদো চেরাপুঞ্জির পাদদেশে
ওই নির্জন কালো পাহাড়ে বসে
সেই কান্নার জল গড়িয়ে এসে পড়ে সমতলে
তখন সবাই কাঁদে, আমিও কাঁদি নীরবে।
এমনিতেই মহামারী করোনায় ক্লান্তশ্রান্ত এপারের মানুষ
কত দিন হলো ঘরবন্দী হয়ে মানবেতর জীবন কাটছে।
এ যেন মহা দুঃসহ জীবন যাত্রা, বড়ো কষ্টে যাচ্ছে দিন
প্রতিনিয়ত প্রাণহানি , লঞ্চডুবিতে হচ্ছে সলিল সমাধি।
তার মধ্যে তোমার কান্নায় জলবন্দি এখন মানুষ
আহা! কী যেন এক নাকাল অবস্থা!
মানুষের অসহ্য দুঃখ কষ্টে
ভারাক্রান্ত হয়ে পড়েছি আমি নিজেই।
আর পারছিনে, কান্না এবার থামাও তোমার,
বাঁচতে দাও এ জনপদের মানুষদের।
জানো তো! তুমি হাসলে আমি হাসি,
হাসে সবাই মিলে,
তোমায় নিয়ে স্বপ্ন দেখি হাজার দিন-রাতের।

লেখক : মুহাম্মদ হাবীবুল্লাহ হেলালী
গণমাধ্যমকর্মী।