‘অসুস্থ’ হয়ে গেম অফ থ্রোনস দেখার জন্য দশ হাজার ছুটির আবেদন!

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৩:৫৫ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৫, ২০১৯ | আপডেট: ৪:০৪:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৫, ২০১৯

অপেক্ষার পালা শেষ হচ্ছে। শুরু হচ্ছে গেম অফ থ্রোনস-এর বহু প্রতীক্ষিত ফাইনাল সিজনের টেলিকাস্ট। বিদেশ তো বটেই, এখানকার দর্শকেরাও অধীর আগ্রহে বসে রয়েছেন এই সিজনের জন্য। নির্মাতারা তাই খুবই যত্ন করে এবং ঢালাও খরচ করে তৈরি করেছেন এই সিজন।

এদিকে বহুল জনপ্রিয় টিভি সিরিজ গেম অফ থ্রোনসের শেষ পর্ব মুক্তিকে ঘীরে সারা অস্ট্রেলিয়া জুড়ে সকল অফিস-আদালতের বসদের সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে যেন অসুস্থতার অজুহাতে কেউ ছুটি নিতে না পারে। খবর ডেইলি মেইলের ।

ওয়েস্ট অস্ট্রেলিয়ানের এক রিপোর্টে বলা হয়, স্ল্যাটার এবং গর্ডন কর্মসংস্থানের জনপ্রিয় আইনজীবী ড্যানিয়েল স্টোজানস্কি বলেছেন, তিনি আশংখা করছেন দশ হাজারেরও বেশি কর্মচারী সোমবার ছুটি নেবে ।

এই আইনজীবী আরও জানান “তারা আইনগতভাবে হোক আর বে-আইনিভাবে হোক শান্তিতে গেম অফ থ্রোনস দেখার জন্য ছুটি চাইবেই”

জনপ্রিয় এইচবিও এই সিরিজ এটির অস্টম সিজনের প্রথম পর্বে আত্মপ্রকাশ করবে, যা টেলিভিশনের ইতিহাসে একটি ঐতিহাসিক ঘটনা চিহ্নিত করবে।

ওয়েস্টেরোস নামক মধ্যযুগীয় বিশ্বের আশেপাশের কেন্দ্রে এই সিরিজের পর্বটি প্রথম ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ায় সোমবার সকাল ৯ টা নাগাদ কর্মরত থাকবে, যখন শ্রমিকরা সাধারণত চাকরির দিকে ঘুরবে এবং পূর্ব রাজ্যগুলিতে ১১ টা।

বিজনেস ইনসাইডারের প্রতিবেদন অনুযায়ী, এই সিজনটির জন্য খরচ হয়েছে ৯০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। তার মানে, বাংলাদেশী মুদ্রায় এই সিজনের খরচ দাঁড়াচ্ছে ৮০০ কোটিরও বেশি টাকা।

অবশ্য এত টাকা খরচ করা যেতেই পারে এই ফাইনাল সিজনের জন্য কারণ এই সিরিজের মেকিং যেমন ব্যয়বহুল, সিরিজটি ব্যবসাও করেছে প্রচুর। নিউ ইয়র্ক টাইমস-এর পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বছরে ১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করেছে এই সিরিজ যা বাংলাদেশী মুদ্রায় প্রায় ৮০০০ কোটি টাকার বেশি। কাজেই এমন একটি সিরিজের শেষ পর্যায়ের প্রত্যেকটি এপিসোডের জন্য ১০০ কোটি টাকা বাজেট থাকা খুব অস্বাভাবিক কিছু নয়।

এই বিপুল পরিমাণ খরচের মধ্যে একটা বিরাট অঙ্ক কিন্তু খরচ হয় ভিস্যুয়াল এফেক্টসের পিছনে। তার পরে তারকা অভিনেতা-অভিনেত্রীদের পারিশ্রমিক রয়েছে। আবার প্রোডাকশন ডিজাইনের পিছনেও খরচ রয়েছে বিশাল অঙ্কের। তবে এত খরচ করে যা তৈরি হয়, তা কিন্তু চোখ মেলে দেখার মতো। বিষয়বস্তুর গভীরতা বা তার পলিটিক্স নিয়ে বিতর্ক থাকতে পারে। এই সিরিজের বেশ কিছু দৃশ্য়ে প্রদর্শিত যৌনতা নিয়েও মুখর হতে পারেন সমালোচকরা। কিন্তু পেশাদারী উপস্থাপনা নিয়ে কোনো কথা হবে না।

এই ফাইনাল সিজনের এক একটি এপিসোড হবে এক ঘণ্টার, এমনটাই শোনা যাচ্ছে। ভারতীয় সময় ভোর ছটায় সম্প্রচার দেখা যাবে, যেমনটা দেখা যেত আগের সিজনগুলোর ক্ষেত্রেও। ১৪ এপ্রিল প্রথম এপিসোডের পরে পরবর্তী পাঁচটি এপিসোড দেখা যাবে প্রতি সপ্তাহের সোমবার।