আইনের ফাঁক গলে নির্বাচনে আসছে জামায়াতে ইসলামী

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯:৪২ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৯, ২০১৮ | আপডেট: ৯:৪২:অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৯, ২০১৮

আইনের সুযোগকে কাজে লাগিয়ে সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতার সুযোগ পাচ্ছে জামায়াতে ইসলামী। যদিও সম্প্রতি যুদ্ধাপরাধে অভিযুক্ত দলটির নিবন্ধন বাতিল করেছেন নির্বাচন কমিশন। ইসি সচিব বলছেন, অন্য কোনো দলের প্রতীকে বা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে চাইলে আটকানোর মতো আইন বাংলাদেশে নাই। তবে জোটগত নির্বাচন করতে চাইলে ৩ দিনের মধ্যে ইসিকে অবগত করতে হবে। এই নিয়ম সকল অনিবন্ধিত দলের জন্য।

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমান বলেন, আগামী সংসদ নির্বাচনে তারা জোটগতভাবে নির্বাচন করবে। তবে কোনো দলের প্রতিক নিবেন না। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবেই নির্বাচন করবেন। এ লক্ষ্যে তারা অনেকদিন আগে থেকেই প্রস্ততি নিয়েছেন। অন্তত ১০০টি আসনে তাদের স্বতন্ত্র প্রার্থী দেওয়ার মতো সক্ষমতা এখনো তাদের আছে।

নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ বলেন, জামায়াতে ইসলামীর মত নিবন্ধন হারানো দল বা ইসিতে নিবন্ধিত নয়- এমন রাজনৈতিক দলও নির্বাচন করতে পারবে। তবে তাদের নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের সঙ্গে জোটবদ্ধভাবে নির্বাচন ও তাদের নির্বাচনী প্রতীক ব্যবহার করতে হবে। জোটগতভাবে নির্বাচন করতে চাইলে ৩ দিনের মধ্যে কমিশনকে জানাতে হবে। আজই (শুক্রবার) দলগুলোকে এ বিষয়ে চিঠি দেয়া হবে।

Add Image

SPONSORED

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক শীর্ষ নেতা জানান, তাদের এবারের নির্বাচনী প্রস্ততি এতটাই শক্তিশালি যে, অন্তত ৮টি আসন আছে যেখানে জোট যদি তাদেরকে সমর্থন নাও দেয় তাহলেও তারা স্বতন্ত্র প্রার্থী দিবে। তবে তারা আশা করছেন, ৫০ থেকে ৬০টি আসনে তাদের প্রার্থী থাকবে।

শুক্রবার রাজধানীর শেরে বাংলানগরের নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে ইসি সচিব হেলালউদ্দীন আহমেদ সাংবাদিকদের জানান, কোনো নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল যদি কোনো অনিবন্ধিত দলের প্রার্থীকে নিবন্ধিত দলের প্রার্থী হিসেবে নমিনেশন দেয়, তাহলে তো আমরা বাধা দিতে পারব না। নিবন্ধন বাতিল হওয়া জামায়াতের সদস্যরা স্বতন্ত্র বা অন্য দলের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে পারবে কি-না, বা ইসি বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখবে কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তারা অন্য কোনো দলের প্রতীকে বা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে চাইলে আটকানোর মতো আইন বাংলাদেশে নাই।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ২৩ ডিসেম্বর সংসদ নির্বাচনের ভোট অনুষ্ঠিত হবে। মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ১৯ নভেম্বর, মনোনয়নপত্র বাছাই ২২ নভেম্বর এবং প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৯ নভেম্বর।