আজও ন্যায়বিচারের প্রতীক্ষায় মুসলমানরা

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:৫৯ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২১ | আপডেট: ১২:৫৯:অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২১
নয়াদিল্লিতে সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় পোড়া একটি মসজিদের ভিতরে দাঁড়িয়ে আছে এক ভারতীয় মুসলিম বালক।

গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে হিন্দু-মুসলমানের মধ্যকার সাম্প্রদায়িক সহিংসতার এক বছর পূর্ণ হয়েছে। ওই ঘটনায় ৫৩ জন মানুষ নিহত এবং শতাধিক আহত হয়েছিলেন। তবে এখন পর্যন্ত কোনো বিচার পায়নি সহিংসতার শিকার পরিবারগুলো। তারা আজও ন্যায়বিচারের প্রতীক্ষায় আছেন। কিন্তু তা মিলবে কি না- সে ব্যাপারে সংশয় রয়েছে।

আল-জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিচারের আশায় থাকা সহিংসতার শিকার দিল্লির উত্তর ঘোন্ডা পাড়ার বাসিন্দা ৩৫ বছর বয়সী মোহাম্মদ নাসির খানের বাম চোখ নেই। ওইদিন গুলি খেয়ে তিনি চোখটি হারান।

সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার সময় গুলিতে চোখ হারানো মোহাম্মদ নাসির খান।

নাসির খান জানান, ঘটনার দিন গুলি করার সময় অজ্ঞাতনামা ওই শ্যুটার ট্রিগারটি চাপার আগে হিন্দু দেবতা “ভগবান রামের বিজয়” বলে চিৎকার করে উঠেন। এর পরই মুহূর্তের মধ্যে গুলি এসে তার চেখে আঘাত করে। তখন মনে হয়েছিল তিনি মারা যাচ্ছেন। কিন্তু ভাগ্যক্রমে বেঁচে যান।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, তাকে যে ব্যক্তি আক্রমণ করেছিল সে এখনো বিচারের আওতায় আসেনি। পুলিশের কাছে বারবার অভিযোগ জানালেও তারা এ ব্যাপারে কোনো আগ্রহ দেখাচ্ছে না। এ কারণেই তারা ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।

বিক্ষোভ চলাকালীন একদল হিন্দুপন্থী বিক্ষোভকারী মোহাম্মদ জুবায়ের নামে একজনকে মুসলমান বলে মারধর করেছে।

আমার একটাই অপরাধ। আর তা হলো- আমার নামটি আমার ধর্মকে চিহ্নিত করে, যোগ করেন মোহাম্মদ নাসির খান।

গত বছরের রক্তাক্ত সহিংসতার শিকার মুসলমানদের মধ্যে অনেকেই বলছেন যে, তারা হিন্দু দাঙ্গাবাজদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্ত করতে অনুরোধ জানালেও পুলিশ বারবার তা প্রত্যাখ্যান করেছে।

নয়াদিল্লিতে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার পরে জিনিসপত্র নিয়ে এলাকা ছেড়ে চলে যাওয়ার সময় একটি মিনি ট্রাকের পেছনে একদল মুসলমান।

কেউ কেউ আশা করছেন যে, আদালত তাদের সহায়তায় এগিয়ে আসবে। আবার কেউ কেউ বিশ্বাস করেন যে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন হিন্দু জাতীয়তাবাদী সরকারের অধীনে বিচার ব্যবস্থা এখন মুসলমানদের বিরুদ্ধে।

-২৪ লাইভ নিউজ।