আজ রাতেই এফএ কাপের মহাযুদ্ধে নামছেন অবামেয়াং-জিরু’রা

প্রকাশিত: ৪:৩১ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১, ২০২০ | আপডেট: ৪:৩৪:অপরাহ্ণ, আগস্ট ১, ২০২০

দুই ম্যানচেস্টারের বিদায় হয়েছে সেমিফাইনালে। ইংলিশ এফএ কাপের শিরোপা যে লন্ডনে যাচ্ছে তা নিশ্চিত হয়েছে তাতেই। রোমাঞ্চ হচ্ছে- উত্তর নাকি পশ্চিম লন্ডনে উৎসব হবে তা নিয়ে। উত্তরের জন্য অপেক্ষা করতে হচ্ছে আজ রাত পর্যন্ত। যেখানে শিরোপা নির্ধারণী লন্ডন ডার্বি ম্যাচে চেলসির মুখোমুখি হচ্ছে আর্সেনাল। বাংলাদেশ সময় রাত দশটায় ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে শুরু হবে ফাইনাল।

একবিংশ শতকে এফএ কাপের সফলতম দুই দল আর্সেনাল এবং চেলসি। ২০০১ সাল থেকে নিয়ে এখন পর্যন্ত দুই দল মিলে ১১ বার জিতেছে এফএ কাপের শিরোপা। শনিবার রাতে আবারও দুই দল মুখোমুখি হচ্ছে এফএ কাপের ফাইনালে। দুই মৌসুম আগেই আর্সেনাল এবং চেলসি এই টুর্নামেন্টের ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল। আর্সেন ওয়েঙ্গারের অধীনে চেলসিকে ২-১ গোলে হারিয়ে রেকর্ড ১৩ বারের মতো এফএ কাপের শিরোপা ঘরে তোলে আর্সেনাল।

তবে এই মৌসুমে দুই দলের হালহকিকত একেবারে ভিন্ন। লিগে চতুর্থ হয়ে যেখানে চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলার পথ সুগম করেছে চেলসি, সেখানে আগামী মৌসুমে ইউরোপে অনুপস্থিত থাকতে হচ্ছে গানারদের। দুই দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব রয়েছেন ক্লাবের সাবেক খেলোয়াড়রা। চেলসির ফ্রাঙ্ক ল্যাম্পার্ড দায়িত্ব নেওয়ার পর প্রথম মৌসুমেই সেরা চারে রাখতে পেরেছেন দলকে। যেটিকে স্ট্যামফোর্ড ব্রিজে সাফল্য হিসেবেই দেখা হচ্ছে। আর তার সাথে এফএ কাপের শিরোপা জুড়ে গেলে প্রথম মৌসুমেই বাজিমাত হয়ে যাবে ল্যাম্পার্ডের।

অপরদিকে ডিসেম্বরে আর্সেনালের দায়িত্ব নেওয়া মিকেল আরতেতার ডাগআউটে একেবারেই ভালো কাটছে না। ১৯৯২-৯৩ মৌসুমের পর প্রথমবারের মতো ইউরোপিয়ান ফুটবল ছাড়া মৌসুম কাটাতে হবে আর্সেনালকে। আর তাই এফএ কাপ ফাইনালটি তার জন্যও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। লিগে ভালো অবস্থানে থাকতে না পারলেও এফএ কাপের শিরোপা সেই ক্ষতে কিছুটা হলেও প্রলেপ দেবে। তবে চোটের কারণে বেশ কয়েকজন খেলোয়াড়কে এই ম্যাচে না পাওয়ার বিষয়টি ভোগাতে পারে আরতেতার দলকে।

ইংলিশ লিগের শিরোপা দৌড় থেকে মৌসুমের মাঝপথেই ছিটকে গেছে আর্সেনাল। তাতে বলির পাঁঠা হয়েছেন প্রধান কোচ উনাই এমেরি। তাকে সরিয়ে ম্যানচেস্টার সিটির সহকারী কোচ মিকেল আর্তেতাকে নিয়োগ দেয় গানাররা। দায়িত্ব পাওয়ার পর শুরুর দিকটা নড়বড়ে থাকলেও আর্তেতা নিজের জাত চেনাচ্ছেন মৌসুমের শেষ দিকে এসে।

লন্ডন ডার্বির মতো ফাইনাল ছাপিয়ে আলোচনায় এখন তিনিই। কেউ কেউ এখনই তার মধ্যে পেপ গার্দিওলা ও ইয়ুর্গেন ক্লপের মতো বিখ্যাত কোচদের ছায়া দেখছেন। যা মোটেই পছন্দ নয় আর্সেনাল প্রধার কোচের। আর্তেতা গার্দিওলা কিংবা ক্লপ হতে চান না। ম্যাচের আগের দিন আলোচনায় এলেন চেলসি কোপ ফ্র্যাঙ্ক ল্যাম্পার্ডও।

ডাগ আউটে এই দুজনের লড়াইকে কেউ কেউ তুলনা করলেন ক্লপ-গার্দিওলা দ্বৈরথের সঙ্গে। লন্ডন ডার্বির আগে এসব আলোচনা অবশ্য আপেক্ষিক। এসব তুলনায় ল্যাম্পার্ড কিংবা আর্তেতা কেউ-ই উচ্ছ্বাসে গা ভাসাচ্ছেন না। বরং শিরোপায় চাতক পাখির চোখ করেছেন তারা। ম্যাচের আগে দুজনই দলকে ট্রফি জয়ের প্রতিশ্রুতি দিলেন।

এফএ কাপ ফর্মের দিক দিয়ে দুই দলই সমানে সমান। এই টুর্নামেন্টে শেষ পাঁচ ম্যাচের কোনোটিতেও হারেনি চেলসি এবং আর্সেনাল। লিগে সদ্য সমাপ্ত মৌসুমে দুই ম্যাচের একটিতে জিতেছিল চেলসি আর অপর ম্যাচটি ড্র হয়েছিল। আর শক্তিমত্তা এবং সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ফর্মের দিক দিয়ে কিছুটা এগিয়ে থেকেই ওয়েম্বলিতে খেলতে নামবে চেলসি। তবে অন্য টুর্নামেন্টগুলোতে যেমনই পারফরম্যান্স হোক না কেন, এফএ কাপ এলেই যেন জেগে ওঠে আর্সেনাল। তাই প্রিয় প্রতিযোগিতায় আরতেতার দল চেলসিকে চমকে দিলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।

দলের খবর

মৌসুমের শেষদিকে মারাত্মক ইনজুরি সমস্যায় রয়েছে আর্সেনাল। গ্যাব্রিয়েল মার্টিনেলি, ক্যালাম চেম্বার্স, পাবলো মারি, বার্নড লেনোরা এখনও চোট থেকে সেরে ওঠেননি, তার মাঝে এবার ডিফেন্ডার স্কোদরান মুস্তাফিও সেই তালিকায় যোগ দিলেন। হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটের কারণে আগামী অক্টোবরের আগে আর মাঠে ফিরছে না তিনি। আর ফিট থাকার পরেও মেসুত ওজিল এবং মাতেও গুয়েন্দুজিকে আপাতত একাদশে রাখছেন না আরতেতা। তাই বেশ সংকুচিত দল নিয়েই চেলসির বিপক্ষে এফএ কাপ ফাইনালে নামতে হচ্ছে গানারদের।

চেলসির অবশ্য খুব বড় কোনও চোট সমস্যা নেই। বিলি গিলমোরকে এই ম্যাচে পাচ্ছেন না ল্যাম্পার্ড, আর গত ছয় ম্যাচে মাঠে না নামা এনগোলো কান্তেকে এই ম্যাচেও দেখা যাওয়ার সম্ভাবনা কম। মৌসুমের শেষ ম্যাচে নিয়মিত গোলরক্ষক কেপা আরিসাবালাগাকে একাদশে রাখেননি ল্যাম্পার্ড। এই ম্যাচেও তার জায়গায় গোলবার সামলাতে দেখা যেতে পারেন উইলি কাবায়েরোকে।

সম্ভাব্য একাদশ

আর্সেনাল
মার্টিনেজ, হোল্ডিং, লুইজ, টিয়েরনে, বেলেরিন, সেবায়োস, শাকা, সাকা, পেপে, লাকাজেত, অবামেয়াং

চেলসি
কাবায়েরো, আজপিলিকুয়েতা, রুডিগার, ক্রিস্টেনসন, আলোনসো, জর্জিনহো, কোভাচিচ, মাউন্ট, হাডসন-অডোয়, পুলিসিচ

প্রেডিকশন

আর্সেনাল ১ – ২ চেলসি