আপনি কি কোমল পানীয় পান করেন, তাহলে পড়ুন

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৩:২৭ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১, ২০১৮ | আপডেট: ৩:২৭:পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১, ২০১৮

টিবিটি লাইফ-স্টাইলঃ কোল্ড ড্রিঙ্ক বা কোমল পানীয় পান। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কোমল পানীয় প্রস্তুত করার সময় যেসব রং মেশানো হয়, তা মানবদেহের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। আর ওই পানীয়কে আকর্ষণীয় করতে যে ‘ফুড অ্যাডিটিভ’ ব্যবহার করা হয় সেই উপাদানও কম ক্ষতিকর নয়।

এ পানীয় আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য মোটেও উপকারী নয়। বরং এটি মানবদেহের প্রতিটি অঙ্গের জন্যই ক্ষতিকর। আর ক্যান্সারের ঝুঁকিতো আছেই।

আসুন কোমল পানীয় পানের ক্ষতিকর দিকগুলো জেনে নেই।

কিডনির কর্মক্ষমতা কমে যায়:

বেশি মাত্রায় কোল্ড ড্রিঙ্ক বা ডায়েট সোডা খেলে কিডনি ফাংশন ব্যাহত হয়। সেই সঙ্গে কিডনিতে পাথর হওয়ার আশঙ্কাও বৃদ্ধি পায়। আসলে এই ধরনের পানীয়, ইউরিনে অ্যাসিড এবং খনিজের ভারসাম্যকে নষ্ট করে দেয়। যে কারণে কিডনি স্টোন হওয়ার আশঙ্কা বৃদ্ধি পায়।

টাইপ-২ ডায়াবেটিস হতে পারে:

বেশ কিছু গবেষণা ইতিমধ্যেই প্রমাণ করেছে যে কোল্ড ড্রিঙ্ক খেলে শুধু কোলেস্টেরল বা হার্টে অ্যাটাকের আশঙ্কাই বাড়ে না, সেই সঙ্গে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও বহুগুণে বৃদ্ধি পায়। আসলে কোল্ড ড্রিঙ্কে প্রচুর মাত্রায় আর্টিফিশিয়াল সুইটনার ব্যবহার করা হয়, যা নানা দিক থেকে টাইপ-২ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার পথকে প্রশস্ত করে।

রক্তচাপ বেড়ে যায়:

ডায়েট সোডা এবং কোল্ড ড্রিঙ্কে সোডিয়াম খুব বেশি থাকে। তাই এসব পানীয় বেশি মাত্রায় খেলে শরীরে সোডিয়ামের মাত্রা খুব বেড়ে যায়। ফলে ব্লাড প্রেসার বৃদ্ধি পাওয়ার আশঙ্কা থাকে। এই কারণেই প্রেসারের রোগীদের কোল্ড ড্রিঙ্ক খেতে মানা করেন চিকিৎসকেরা।

দাঁতের ক্ষতি:

ডায়েট সোডায় অ্যাসিডিক এলিমেন্ট খুব বেশি থাকে। তাই এ ধরনের পানীয় পানে দাঁতের ক্ষয় শুরু হয়। সেই সঙ্গে দাঁতের অন্যান্য রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও বৃদ্ধি পায়।

ওজন বৃদ্ধি করে:

তথাকথিত কোমল পানীয়তে ক্যালোরির মাত্রা খুব বেশি থাকে। ফলে কোল্ড ড্রিঙ্ক বা ডায়েট সোডা বেশি খেলে ওজন বৃদ্ধির সম্ভাবনা বহুগুণে বৃদ্ধি পায়। সেই সঙ্গে হজমক্ষমতা বিগড়ে যাওয়ার কারণে আরও নানা ধরনের রোগও হতে পারে।