আবহমান বাংলার সংস্কৃতি লালন করুন : ঘুড়ি উৎসবে তথ্যমন্ত্রী

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:০৩ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৫, ২০২১ | আপডেট: ৬:০৩:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৫, ২০২১

আকাশ সংস্কৃতির যুগে দেশীয় ঐতিহ্য ধরে রাখতে আবহমান বাংলার সংস্কৃতি ধারণ ও লালনে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিতে আহ্বান জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

তিনি বলেন, ‘দেশের ঐতিহ্য রক্ষায় আমাদের আবহমান বাংলার সংস্কৃতি ধরে রাখতে হবে। আকাশ সংস্কৃতির হিংস্র থাবায় অনেক সংস্কৃতি এখন হুমকির মুখে। আমাদের দেশে আগে বিয়ে-গায়ে হলুদসহ নানা অনুষ্ঠানে দেশের গানই গাওয়া হতো, আমাদের ছেলেমেয়েরা আবহমান বাংলার সাজসজ্জা নিয়েই হাজির হতো। কিন্তু এখন তা বদলে যাচ্ছে। আমাদের সংস্কৃতির ওপর এই আঘাত অত্যন্ত বেদনাদায়ক। নিজেদের সংস্কৃতিকে আমাদের ধরে রাখতে হবে।’

বৃহস্পতিবার (১৪ জানুয়ারি) দুপুরে রাজধানীতে গেন্ডারিয়ার ধুপখোলা মাঠে ঢাকা সাংবাদিক ফোরাম আয়োজিত ঘুড়ি উৎসবে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

ঘুড়ি উৎসবকে আমাদের সংস্কৃতির অংশ হিসেবে উল্লেখ করে ড. হাছান এসময় ঘুড়ি উৎসবের আয়োজক ঢাকা সাংবাদিক ফোরামকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, ‘পুরনো ঢাকার ঐতিহ্য তো বটেই, এটি পুরো বাংলাদেশের সংস্কৃতির অংশ। আমরা প্রায় সবাই ছোটবেলায় ঘুড়ি উড়িয়েছি। কিন্তু এখন আমাদের কিশোর-তরুণরা ঘুড়ি উড়াতে পারে না জায়গার অভাবে। এই ঘুড়ি উড়ানোর যে কী আনন্দ-উত্তেজনা, যারা ঘুড়ি উড়াননি, তারা বুঝতে পারবেন না।’

তথ্যমন্ত্রী জানান, করোনা মহামারি আক্রান্ত পৃথিবীতে মাত্র যে ২২টি দেশে জিডিপি’র ধ্বনাত্মক প্রবৃদ্ধি হয়েছে, তার মধ্যে বাংলাদেশ তৃতীয় এবং এশিয়ায় সবার ওপরে। এর কারণ উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমাদের মানুষগুলোর সংকট মোকাবিলায় সক্ষমতা এবং প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্ব এর কারণ। এ কারণেই কোনো কাজ থেমে নেই, সবকিছু চলছে। আর সংস্কৃতি সবসময় সংকট মোকাবিলায় শক্তি হিসেবে কাজ করে।’

ঢাকা সাংবাদিক ফোরাম সভাপতি শামীম সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে সংসদ সদস্য ও ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বেনজীর আহমেদ, আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, প্রধানমন্ত্রীর সাবেক তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, আওয়ামী লীগ ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি আবু আহমেদ মান্নাফী ও সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবীর, সাংবাদিক নেতা আব্দুল জলিল ভূঁইয়া, একাত্তর টিভি’র বার্তাপ্রধান শাকিল আহমেদ, সাংবাদিক লাবণ্য ভূঁইয়া, ইহিতা জলিলসহ অন্যরা অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে যোগ দেন।

ঘুড়ি ও লাটাই হাতে বিভিন্ন বয়সী বিপুলসংখ্যক উৎসাহীদের উপস্থিতিতে মুখরিত উৎসব প্রাঙ্গণে তথ্যমন্ত্রী ঘুড়ি উড়িয়ে উৎসব উদ্বোধন করেন।

এছাড়া বিকেলে তথ্যমন্ত্রী ও বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. হাছান মাহমুদের সভাপতিত্বে বোর্ডের অষ্টাদশ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

অসুস্থ, অস্বচ্ছল, প্রয়াত সাংবাদিকদের ও তাদের পরিবারের জন্য অনুদান দিতে সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয় সভাকক্ষে আয়োজিত এ সভায় ট্রাস্ট্রের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাফর ওয়াজেদ, অর্থ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. গোলাম মোস্তফা, তথ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব এস এম মাহফুজুল হক, বিএফইউজে মহাসচিব শাবান মাহমুদ, দৈনিক সংবাদের ব্যবস্থাপনা সম্পাদক কাশেম হুমায়ুন, ডিইউজে সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ ও সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু অংশ নেন।