‘আমার ছোট নাতিনটাও আজ মোবাইল নিয়ে খেলা করে’

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:০৪ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০১৮ | আপডেট: ১০:০৪:পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০১৮

টিবিটি জাতীয়ঃ৭১’এ যেভাবে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশ রক্ষা করেছে জনগণ, ঠিক একইভাবে গণতন্ত্র ও উন্নয়নের ধারাকে ধরে রাখতে আহ্বান জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম।

মঙ্গলবার (২৫ সেপ্টেম্বর) সকালে কেরানীগঞ্জে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় পুষ্টি চাল বিতরণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে একথা বলেন তিনি। এসময় তিনি আরও বলেন, খাদ্য ঘাটতি নিয়ে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলেও বর্তমানে দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করে বিদেশে রপ্তানিকারক দেশ হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে বাংলাদেশ।

অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেন, ‘সকল ক্ষেত্রে আজকে কেবল মাত্র অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি হলে হবে না, আজকে সাধারণ মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য, আজকে মানুষের পুষ্টিকর খাদ্যের প্রয়োজন।

এ চিন্তা-চেতনা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী কাজ করে যাচ্ছেন। উন্নত দেশেও গরীব থাকে, আমাদের দেশেও আছে, আমরা তাদের পুষ্টিকর খাবার যেন গ্রহণ করতে পারে সেও ব্যবস্থা আমরা করে যাচ্ছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘দেশ উন্নতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে তার প্রমাণ পদ্মা সেতু। এই পদ্মা সেতুর অর্থ বিশ্বব্যাংক প্রত্যাহার করেছিল। সেই পদ্মা সেতু এখন নিজেদের অর্থেই হচ্ছে। আজ ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ। অথচ একসময় এই বিদ্যুতের সংকটে ভুগেছে মানুষ। আর আজ বিদ্যুতের কোন ঘাটতি নেই।

শিশুরা বছরের প্রথম দিনেই বই হাতে পেয়ে যাচ্ছে। আমার জানা মতে, পৃথিবীর কোথাও নিয়ম নেই বছরের প্রথম দিন বিনামূল্যে দেয়ার, অথচ আমাদের প্রধানমন্ত্রী সেই ব্যবস্থা করেছেন। আমরা যখন ছোট ছিলাম, তখন আমাদের বড় ভাইদের বলে রাখতাম তোমার পুরনো বইটা আমাদের দিও, পুরনো বই দিয়ে আমরা যাত্রা শুরু করেছিলাম।’

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, ‘একসময় এক হাত লম্বা মোবাইল ছিল,মোর্শেদ খানের কোম্পানির। দাম এক লাখ ৩০ হাজার টাকা দাম। যেতে ১০টাকা, আসতে ১০টাকা। আর এখন মোবাইল খুব সহজলভ্য। আমার ছোট নাতিনটাও আজ মোবাইল নিয়ে খেলা করে। এই যে তথ্য প্রযুক্তির এই উন্নতি তার মূলে রয়েছেন আমাদের প্রধানমন্ত্রী। আর কঠোর প্রয়াসেই আজ এই উন্নতি।’