‘আর একটি’ লড়াই দরকার, সেটা দেশবাসী করবে: দুদু

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৭:১৯ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৩১, ২০১৯ | আপডেট: ৭:১৯:অপরাহ্ণ, আগস্ট ৩১, ২০১৯
শামসুজ্জামান দুদু। ফাইল ছবি

গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য দেশে যে লড়াইটি সমাপ্ত করা দরকার সেই লড়াইটি এদেশবাসী আবারও করবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান ও কৃষক দলের আহবায়ক শামসুজ্জামান দুদু।

তিনি বলেছেন, ‘কিছু মানুষ বিশ্বাস করতে পারছে না, কিছু কি হবে? ফ্যাসিবাদ সরকার থেকে বেরিয়ে আসা সম্ভব কি হবে? এই বিশ্বাস থেকেই আমি বলতে চাই- ন্যায় কখনও অন্যায়ের কাছে পরাজিত হয় না। যদি তাই হয় তাহলে ভাববো ধর্ম, রাজনীতি এ ধরনী সব মিথ্যা। তাই আমি বিশ্বাস করি এই মাওলানা ভাসানীর দেশ, শহীদ জিয়ার দেশ, কাজী জাফরের দেশ কারো পদদলিত হতে পারে না। এটা ব্রিটিশ শাসনের থেকে যেমন পাকিস্তান হয়েছে, পাকিস্তান থেকে যেমন বাংলাদেশ হয়েছে, তেমনি এই দেশে যদি আরেকটি লড়াই দরকার হয। সেই লড়াইটি সমাপ্ত করা দরকার। সেই লড়াইটি এদেশবাসী আবারও করবে।’

শনিবার (৩১ আগস্ট) জাতীয় প্রেসক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে ভাসানী অনুসারী পরিষদের উদ্যোগে সাবেক প্রধানমন্ত্রী কাজী জাফরের চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

কাজী জাফরের স্মৃতিচারণ করে শামসুজ্জামান দুদু বলেন, ‘কাজী জাফরের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক শুরুর জীবনটা ছিল অনেকটা সংগ্রামী, মধ্যজীবনে এসে তিনি দিক পরিবর্তন করেছিলেন কিন্তু শেষ জীবনে এসে তিনি আবার সঠিক পথে ফিরেছিলেন।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘আমি কাজী জাফরের সমালোচনা করছি না। দিনের প্রথম প্রহরে যেমন সূর্য উঠে দুপুরের প্রখর হয় এবং আস্তে আস্তে সন্ধ্যা নামে অন্ধকার আসে আবার অন্ধকারের পরে আবার সূর্য উঠে- কাজী জাফরের জীবনটাই এরকম।’

ছাত্রদলের সাবেক এই সভাপতি বলেন, ‘কাজী জাফরের প্রথম এবং শেষ জীবনটা ছিল গণতন্ত্রের জন্য তিনি শেষ জীবনেও গণতন্ত্রের জন্য প্রচুর কাজ করেছেন। কিন্তু এই অবৈধ সরকারের হাত থেকে গণতন্ত্র মুক্ত করে যেতে পারেননি। এখন আমরা যে অবস্থায় আছি এর চেয়েও খারাপ অবস্থায় পাকিস্তানের শেষের দিকে ও বাংলাদেশের প্রথম দিকে কাজী জাফর মুখোমুখি হয়েছেন। এবং দক্ষতার সাথে তিনি তা মোকাবেলা করেছেন।’

‘আজ কেন পারছি না আমরা? আমার মনে হচ্ছে বাংলাদেশে ফ্যাসিবাদ সরকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এর দ্বারা মানুষের আশা ভরসা বিশ্বাস স্বাধীনতা সংগ্রাম সকল অতীত সবকিছু যেন দমিয়ে ফেলেছে। এটি হচ্ছে ফ্যাসিবাদেরই একটি নগ্ন রূপ।’

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি ও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জাতীয় পার্টি (জাফর) এর চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য জহির উদ্দিন স্বপন, বাংলাদেশ পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান রিতা রহমান প্রমুখ।