আসামে চূড়ান্ত নাগরিক তালিকা থেকে বাদ পড়া অধিকাংশই হিন্দু বাঙালি!

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২:১১ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৩১, ২০১৯ | আপডেট: ২:১১:অপরাহ্ণ, আগস্ট ৩১, ২০১৯
সংগৃহীত

ভারতীয় আসাম রাজ্য নাগরিক নিবন্ধনের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করেছে। দেড় বছর আগে খসড়া প্রকাশের পর শনিবার সকাল ১০টায় এই চূড়ান্ত তালিকা ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে।

তিন কোটি ৩০ লাখ আবেদনকারীর মধ্যে তিন কোটি ১১ লাখ লোককে চূড়ান্ত তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। কাজেই ১৯ লাখ লোক রাষ্ট্রহীন হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

এ আশঙ্কায় যুক্ত হয়েছেন সেখানের হিন্দু বাঙালিরা। তালিকা থেকে বাঙালিরাই বেশি বাদ পড়তে পারেন বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বাঙালি হিন্দু নেতারা।

গতকাল শুক্রবার গুয়াহাটি থেকে প্রকাশিত স্থানীয় বাংলা সংবাদমাধ্যম যুগশঙ্খ জানিয়েছে, আসামের হিন্দু বাঙালিদের নথি-সংকট রয়েছে। তাদের অনেকের কাছে নাগরিকত্ব লাভের দালিলিক প্রমাণ নেই।

আর সারা আসাম বাঙালি ঐক্যমঞ্চ, বাঙালি যুব-ছাত্র ফেডারেশ, বেঙ্গলি ইউনাইটেড ফোরাম সেসব নথির ভিত্তিতেই চূড়ান্ত নাগরিক তালিকা (এনআরসি) প্রকাশ করবে। সে হিসেবে হিন্দু বাঙালিরাই বাদ পড়ার আশঙ্কা বেশি।

এ বিষয়ে রাজ্যের বাঙালি নেতাদের অভিযোগ, শেষ মুহূর্তে শরণার্থীর প্রমাণপত্র, নাগরিক সনদ, রিলিফ ইনজিবিলিটি সার্টিফিকেটের মতো নথি আমলে নেয়া হয়নি। ফলে তালিকা থেকে হিন্দু বাঙালিরাই বেশি বাদ পড়বেন।

বাঙালি নেতাদের এমন অভিযোগের ভিত্তিতে সারা আসাম বাঙালি যুব-ছাত্র ফেডারেশনের সাবেক নেতা চিত্ত পাল বলেন, নাগরিকত্ব প্রমাণের প্রয়োজনীয় নথিপত্র নেই হিন্দু বাঙালিদের কাছে।

চূড়ান্ত তালিকা থেকে বাদ পড়াদের ১৭-১৮ লাখ হিন্দু বাঙালি রয়েছেন বলে অনুমান করছেন তিনি।
আসাম সরকারের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, জাতীয় নাগরিকত্ব নিবন্ধনে(এনআরসি) তিন কোটি ১১ লাখ লোক আবেদন করেছিলেন। সেখান থেকে ১৯ লাখকে বাদ দেয়া হয়েছে।
আসাম সরকার জানায়, ‘অবৈধ বাংলাদেশি’দের চিহ্নিত করে ফেরত পাঠানোর লক্ষ্যেই জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) চূড়ান্ত করা হচ্ছে।

তালিকায় নাম না-থাকাদের এখনই বের করে দেয়া হবে না বলে কর্মকর্তারা বারবার আশ্বস্ত করলেও এর মাধ্যমে আসামের সংখ্যালঘু বাঙালি বিশেষত মুসলমানদের ‘উইচ হান্টিং’-এর শিকার হতে হবে বলে আশঙ্কা করছেন পর্যবেক্ষকরা।

সংশোধিত তালিকা থেকে বাদ পড়া আবেদনকারীরা তালিকায় নাম ওঠাতে ২৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আপিল করতে পারবেন বলে আগেই জানিয়েছেন রেজিস্ট্রার জেনারেল অব ইন্ডিয়া শৈলেশ। তিনি বলেন, আপত্তি করার জন্য জনগণকে পর্যাপ্ত এবং যথেষ্ট সুযোগ দেয়া হবে।