আ.লীগের লোকজনও জানেন না সরকার কীভাবে চলছে : ফখরুল

প্রকাশিত: ৮:০৪ অপরাহ্ণ, মে ১৭, ২০২১ | আপডেট: ৮:০৪:অপরাহ্ণ, মে ১৭, ২০২১
ঠাকুরগাঁওয়ে নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করছেন মির্জা ফখরুল। ছবি: সংগৃহীত

পরিকল্পনাবিহীন অবস্থায় সরকার দেশ পরিচালনা করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের লোকজনও জানেন না সরকার কীভাবে চলছে, কারা চালাচ্ছে। এটি একটি পুলিশি রাষ্ট্র, আর সরকারের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে দুর্নীতি। এই দুর্নীতি ও লুটপাট জারি রাখার জন্য জনগণ দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে।

সোমবার (১৭ মে) বেলা ১১টায় ঠাকুরগাঁও শহরের কালিবাড়িস্থ নিজ বাসভবনে স্থানীয় সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি অভিযোগ করেন, সরকার ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন দিয়ে মানুষের কথা বলার স্বাধীনতাকে শূন্যের কোঠায় নামিয়ে দিয়েছে। এখন যেকোনও সাংবাদিক লিখলে, সরকার যদি মনে করে সংবাদটি তাদের বিপক্ষে যায়, তাহলে সেই সাংবাদিককে বিভিন্ন মামলা দিয়ে কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। সোশ্যাল মিডিয়ায় শিশু থেকে শুরু করে গৃহবধূ পর্যন্ত ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনের মামলায় হয়রানি হচ্ছেন।

মির্জা ফখরুলের মতে, ২৬ মার্চ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরকে কেন্দ্র করে সরকার নিজেদের লোক দিয়ে বিভিন্ন ঘটনা ঘটিয়ে তা বিরোধীদের ওপর চাপিয়ে দিচ্ছে। বিরোধীদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে গণগ্রেফতার চলছে। গ্রেফতার ব্যক্তিদের ঈদের মধ্যেও জামিন দেওয়া হয়নি।

এছাড়া মহামারি করোনা মোকাবিলায় সরকার সম্পূর্ণ ব্যর্থ বলে দাবি করেন তিনি। মির্জা ফখরুল বলেন, করোনাকে আন্তরিকভাবে নিয়ন্ত্রণ করার ও প্রতিরোধের কোনো ইচ্ছাই নেই সরকারের। উল্টো নানা সুবিধা নেওয়াসহ হাসপাতালগুলোতে দুর্নীতির একটি বিরাট সুযোগ সৃষ্টি হয়। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণাকৃত প্রণোদনার টাকা লুটপাট করে খায়। আমরা বলার পরেও অন্যান্য রাজনৈতিক দলসহ কাউকে সম্পৃক্তের চিন্তাও করেনি। এটি করলে সচেতনতা সৃষ্টি করা সহজ হতো বলে মনে করেন বিএনপির এ শীর্ষ নেতা।

মির্জা ফখরুল আরও বলেন, ‘মানুষ খেতে পারছে না। অথচ তাদের বলা হচ্ছে ঘরে বসে থাকো। তারা বসে থাকবে, তবে সেই ব্যবস্থা তো সরকারকে নিতে হবে। কিন্তু সরকার কোনো ব্যবস্থা না করেই মানুষকে জোর করে ঘরে রাখতে ব্যর্থ চেষ্টা করছে।’

তিনি বলেন, সরকারের উদাসীনতা, অজ্ঞতা, দুর্নীতিগ্রস্ততায় লাকডাউন এখন ক্র্যাকডাউন করছে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপি সভাপতি তৈমুর রহমান, সহ-সভাপতি মামুন উর রশীদ, উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হামিদসহ সংগঠনের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা।