আ.লীগ অফিসের কাছে হর্ন বাজানো নিয়ে সংঘর্ষ

প্রকাশিত: ৮:২৪ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৮ | আপডেট: ৮:২৪:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৮

রাজধানীতে হর্ন বাজানােকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ কর্মী ও পরিবহন শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় এনা পরিবহনের একটি বাসের চালককে হর্ন দেয়ায় প্রথমে মারধর করা হয়। পরে এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

সোমবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর মহাখালী টার্মিনাল এলাকায় রাত ১১টার দিকে এই ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও পরিবহন সূত্রে জানা গেছে, মহাখালী মোড়ে এনা পরিবহনের একটি বাসের চালক আক্তার হোসেন মহাখালীর আওয়ামী লীগ অফিসের কাছে গিয়ে জোরে হর্ন দেন। এসময় ওই অফিসে থাকা ইমরান নামের এক যুবক বের হয়ে আসে এবং চালককে নামান। পরে একে কেন্দ্র করে চালকের ওপর আওয়ামী লীগ কর্মী ইমরানসহ কয়েকজন ওপর চড়াও হয়। প্রথমে তর্কবিতর্ক পরে তা উত্তেজনায় ছড়ায়। এক পর্যায় তারা ওই চালককে মারধর করলে তার মাথা ফেটে যায়। এ খবর রাত সাড়ে ১১টার দিকে ছড়িয়ে পড়লে বিক্ষুদ্ধ পরিবহন শ্রমিকরা মহাখালীর দিকে এগুতে থাকে। অন্যদিকে চালককে মারধরকারী আওয়ামী লীগের কর্মীরাও জড়ো হতে থাকেন এবং তাদের সঙ্গে যোগ দেয় এলাকাবাসী। এসময় তাদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে এবং এক পর্যায় তা সংঘর্ষে রূপ নেয়।

এসময় বনানী থেকে মহাখালী এবং মহাখালী থেকে বনানী, গুলশান লিংক রোড, মহাখালী টার্মিনালের দিকে আসার রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। প্রায় আধা ঘণ্টাব্যাপী চলে এ ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া। পুরো এলাকায় থমথমে অবস্থার সৃষ্টি হয়।

আলী আজম নামের এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, চালককে বাস থেকে নামিয়ে একজন যুবক ঢালাওভাবে মারতে থাকে। মার সহ্য করতে না পেরে ওই সময় চালক পালানোর চেষ্টাও করেন। কিন্তু তাকে আবারও ধরে মারা হয়। তাকে মেরে ইমরানসহ কয়েকজন রক্তাক্ত করে ফেলে। পরে মারধরের শিকার চালক মহাখালী বাসস্ট্যান্ডের দিকে চলে যান।

খবর পেয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অতিরিক্ত পুলিশ পাঠানো হয়। তারা গিয়ে দুই পক্ষকে থামান। তাদের বোঝানোর চেষ্টা করেন। পরে রাত ১২টা ১০ মিনিটের দিকে যানচলাচল স্বাভাবিক এবং পরিস্থিতি শান্ত হয় বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের উত্তর বিভাগের মহাখালী জোনের সহকারী কমিশনার আশরাফ উল্লাহ।

তিনি ব্রেকিংনিউজকে জানান, এনা পরিবহনের এক চালকের হর্ন বাজানোকে কেন্দ্র করে কয়েকজন ব্যক্তি তাকে মারধর করে। পরে তাদের সাথে যোগ হয় স্থানীয়রাও। এ নিয়ে পরিবহন শ্রমিক ও এলাকাবাসীর মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে পুলিশ।

মহাখালী বাস টার্মিনালের পরিবহন সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক জামাল জানায়, বাসটির চালক আক্তারকে স্থানীয় আওয়ামী লীগ অফিসের কর্মী ইমরানসহ কয়েকজন যুবক মারধর করে। পরে তারা বিষয়টি ভিন্নখাতে নিতে এলাকাবাসী মিলে আবারও শ্রমিকদের ওপর হামলা চালায় বলে তার অভিযােগ।

এ ব্যাপারে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানার ওসি আব্দুর রশিদ ব্রেকিংনিউজকে জানান, পরিস্থিতি এখন শান্ত আছে। কি কারণে এমন ঘটনা ঘটেছে তা জানার চেষ্টা করছি। মালিক সমিতি ও পরিবহন সমিতির সাথে যোগাযোগ করে বিষয়টা সমাধান করা হয়েছে।