আ’ লীগ নেতার জানাজায় লাঞ্ছিত এমপি ডা. মোজাম্মেল

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:২১ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২, ২০১৮ | আপডেট: ১০:২১:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২, ২০১৮

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের জেরে দুই আওয়ামী লীগ নেতা নিহত হওয়ার ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যানসহ চারজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ সময় তাদের কাছ থেকে লাইসেন্স করা অস্ত্রসহ মোট তিনটি দেশি-বিদেশি আগ্নেয়াস্ত্র ও তিনটি গুলি উদ্ধার করে তারা।

সোমবার রাতে পুলিশের একাধিক দল ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে ওই চারজনকে গ্রেফতার করে। তবে থানায় কোনো মামলা হয়নি।

এদিকে বাগেরহাট-৪ আসনের সংসদ সদস্য ডা. মোজাম্মেল হোসেন প্রতিপক্ষের হাতে লাঞ্ছিত হয়েছেন।

মঙ্গলবার দুপুরে নিহত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা আনছার আলী দিহিদারের ময়নাতদন্ত খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং দলীয় কর্মী শুকুর শেখের বাগেরহাট সদর হাসপাতাল মর্গে সম্পন্ন হয়েছে।

নিহত শুকুর শেখের শরীরে বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের কোপ ছাড়াও পাঁচটি গুলির চিহ্ন পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে ময়না তদন্তকারী মেডিকেল বোর্ড।

গুরুতর আহত বাবলু শেখ দৈবজ্ঞহাটি ইউনিয়ন তাঁতী লীগের শ্রমবিষয়ক সম্পাদক। তিনি বর্তমানে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

বাগেরহাট সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) এবং মেডিকেল বোর্ডের প্রধান ডা. মশিউর রহমান মঙ্গলবার দুপুরে বলেন, তিন সদস্যের মেডিকেল বোর্ড নিহত শুকুর শেখের ময়নাতদন্ত করে। নিহতের পিঠে পাঁচটি গুলির চিহ্ন পাওয়া গেছে। যার মধ্যে তিনটি পিঠ দিয়ে ঢুকে পেট দিয়ে বের হয়েছে। এ ছাড়া তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে একাধিক ধারালো অস্ত্রের কোপের চিহ্ন রয়েছে।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- মোরেলগঞ্জ উপজেলার দৈবজ্ঞহাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা ফকির শহীদুল ইসলাম, মো. আবুয়াল হোসেন ফকির, আবুল শেখ এবং জুলহাস ডাকুয়া। তাদের মধ্যে মো. আবুয়াল হোসেন ফকির, আবুল শেখ দৈবজ্ঞহাটি ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশের সদস্য।

উদ্ধার হওয়া অস্ত্রের মধ্যে রয়েছে একটি দেশি তৈরি রিভলবার, একটি বিদেশি শটগান, একটি দেশি তৈরি ওয়ান শুটারগান, একটি কুড়াল ও তিনটি গুলি। এর মধ্যে শটগানটি চেয়ারম্যান ফকির শহীদুল ইসলামের লাইসেন্স করা।

বাগেরহাটের পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায় দুপুরে সাংবাদিকদের বলেন, ঘটনায় জড়িত সন্দেহে চেয়ারম্যান ও তার তিন সহযোগীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে তিনটি অস্ত্র ও তিনটি গুলি উদ্ধার করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদ চলছে তাদের।

জানাজায় উপস্থিত ব্যক্তিদের রোষানলে এমপি ডা. মোজাম্মেল হোসেন: বাগেরহাট-৪ আসনের সংসদ সদস্য ডা. মোজাম্মেল হোসেন লাঞ্ছিত হয়েছেন। মঙ্গলবার বিকেল ৫টার দিকে দৈবজ্ঞহাটির সেলিমাবাদ ডিগ্রি কলেজ মাঠে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার সময় নিহত ওই দুই আওয়ামী লীগ নেতার জানাজায় শরিক হতে গিয়েছিলেন।

জানাজার আগে জনতার উদ্দেশে বক্তৃতা শুরু করলেই শত শত মানুষ প্রথমে হাত তুলে ও চেঁচামেচি করে প্রতিবাদ জানান। এক পর্যায়ে মাইকের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন। এর পরও এমপি মোজাম্মেল হোসেন ওই মঞ্চে অবস্থান করায় ক্ষুব্ধ জনতা জুতা ছুঁড়তে শুরু করে।

এ সময় বাগেরহাট জেলা পুলিশ সুপার পঙ্কজ চন্দ্র রায় পুলিশের একটি বড় বহর নিয়ে এমপিকে জানাজার আগেই নিরাপদে সরিয়ে নেন। পরিস্থিতি শান্ত করতে র্যা ব-৬-এর একটি দলও এ সময় কাজ করে। শত শত লোকের হৈচৈয়ের মধ্যেই জানাজা সম্পন্ন হয় তাদের।