ইউনিফর্ম না পরে আসায় শিক্ষার্থীদের প্যান্ট খুলিয়ে ক্লাস করাল শিক্ষক

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: 6:27 PM, November 19, 2019 | আপডেট: 6:27:PM, November 19, 2019

স্কুলের ইউনিফর্ম পরে না আসায় ‘নগ্ন’ করে ক্লাস করানোর অভিযোগ ওঠে একটি বেসরকারি ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের বিরুদ্ধে। শুধু তাই নয় ‘নগ্ন’ অবস্থাতেই বাড়ি পাঠানো হয় পড়ুয়াদের। এই ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের বোলপুরে। এরপর এলাকায় উত্তেজনা ছড়ায়।

এই ঘটনার পর স্কুলের প্রিন্সিপালকে সরানোর দাবি করে বিক্ষোভ করেছেন অভিভাবকরা।

২৪ ঘণ্টার খবর অনুযায়ী, বোলপুরের একটি ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে গতকাল এই ঘটনাটি ঘটেছে বলে জানা গেছে। প্রথম শ্রেণি থেকে চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত প্রায় তিরিশ জন পড়ুয়াকে নগ্ন করে ক্লাস করানোর অভিযোগ উঠেছে। সারাদিন ওভাবেই স্কুলে থাকে ওই পড়ুয়ারা। তারপর নগ্ন অবস্থাতেই বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হয় পড়ুয়াদের। স্কুল কর্তৃপক্ষ দাবি করে, ওই পড়ুয়ারা স্কুলের ইউনিফর্ম পরে আসেনি।

স্কুল কর্তৃপক্ষ বলছে, ওই শিক্ষার্থীরা স্কুলের নির্ধারিত পোশাক পরে আসেনি। ভুল পোষাক পরে এসেছিল। ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের এভাবে হেনস্থার ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর স্কুল চত্বরে জমায়েত হয়ে বিক্ষোভ করেছেন অভিভাবকরা।

এ ঘটনার পর সোমবার শান্তিনিকেতন থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা। পরে বিষয়টি মীমাংসা করতে শান্তিনিকেতন থানায় গিয়ে অভিভাবকদের কাছে ক্ষমা চান ওই স্কুলের অধ্যক্ষ।

কিন্তু অধ্যক্ষ ক্ষমতা চাইলেও মঙ্গলবার সকাল থেকে ফের স্কুলে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন অভিভাবকরা। এ ঘটনার জন্য অধ্যক্ষকে অপসারণের দাবি জানান তারা।

এই ঘটনা সামনে আসতেই বিক্ষোভে ফেটে পড়েন অভিভাবকরা। এই ঘটনায় গতকালই শান্তিনিকেতন থানায় লিখিত অভিযোগ করেন অভিভাবকরা। বিক্ষোভও দেখাতে থাকেন তাঁরা। শান্তিনিকেতন থানায় গিয়ে স্কুলের প্রিন্সিপাল ক্ষমা চান।

তবে আজ সকাল থেকে ফের স্কুলে এসে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন অভিভাবকরা। এই ঘটনার জন্য প্রিন্সিপালকে সরানোর দাবি জানান তাঁরা। অবশেষে স্কুল কর্তৃপক্ষ তাদের ভুল স্বীকার করে। তারপরেও কিছুক্ষণ চলে বিক্ষোভ। এই ঘটনায় রিপোর্ট তলব করেছেন ভারতের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চ্যাটার্জি।