ইকো পার্কে ঘুরতে এসে দুই কলেজছাত্রী গণধর্ষণের শিকার!

প্রকাশিত: ৪:৫৬ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৪, ২০২০ | আপডেট: ৪:৫৬:অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৪, ২০২০
প্রতিকী ছবি

মজিবর রহমান, পিরোজপুর প্রতিনিধি: পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলায় সহপাঠীদের নিয়ে ইকো পার্কে ঘুরতে এসে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বামনা উপজেলার দুই কলেজ ছাএী।

বৃহস্পতিবার (১৩ আগস্ট) বিকেলে উপজেলার উওর মিঠাখালী আর্শেদ আলীর পুকুর পাড়ে গনধর্ষণের এ ঘটনা ঘটে। ধর্ষিতা দুই কলেজ ছাত্রীকে উদ্ধার করেছে মঠবাড়িয়া থানা পুলিশ। মঠবাড়িয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাসান মোস্তফা স্বপন গনধর্ষণের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ধর্ষিতা ওই দুই কলেজ ছাত্রী জানায়, বামনা উপজেলার ডৌয়াতলা গ্রামের ওই দুই কলেজ ছাত্রী সকালে স্থানীয় হলতা ডৌয়াতলা ওয়াজেদ আলী খান ডিগ্রি কলেজে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তির জন্য কলেজে কাগজপত্র জমা দিয়ে দুপুরে প্রতিবেশী সহপাঠী সোহাগ খান (২০) ও শাহাদাৎ (২১) কে নিয়ে মঠবাড়িয়া হয়ে ভান্ডারিয়ার হরিনপালা ইকোপার্কে ঘুরতে যাচ্ছিলেন।

দুপুরের সময় তাদের বহনকারী ইজিবাইক উপজেলার উত্তর মিঠাখালী (মাঝেরপুল) নামক স্থানে নষ্ট হয়। এসময় স্থানীয় উত্তর মিঠাখালী গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত বিডিআর সদস্য খলিলুর রহমানের পুত্র মাদকসেবী রানা (৩৫), কালামের পুত্র মারুফ (২২), ছিদ্দিক ফরাজীর পুত্র সোহাগ (২২) তাদের জিম্মি করে। এরপর আর্শেদ মিয়ার বাড়ীর সম্মুখে সরকারী পুকুর পাড়ে নিয়ে দুই ছাত্রীকে মারধর করে মোবাইল, টাকা পয়সা ছিনিয়ে নেয়। পরে নির্জন এলাকায় নিয়ে তিনজনে মিলে গনধর্ষণ করে। এরপর ওই কলেজ ছাত্রীর অভিভাবকদের কাছে ফোন করে ১৫ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবী করে।

মঠবাড়িয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাসান মোস্তফা স্বপন ও মঠবাড়িয়া থানা অফিসার ইন চার্জ (ওসি) এ জেড এম মাসুদুজ্জামান মিলু ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। মঠবাড়িয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাসান মোস্তফা স্বপন জানান, গনধর্ষণের শিকার ওই দুই কলেজ ছাএীকে উদ্ধার করা হয়েছে।

এ বিষয়ে মঠবাড়িয়া থানায় মামলা রুজু করা হয়েছে।