ইন্দোনেশিয়ায় বিশ্বের প্রাচীনতম গুহা চিত্রকর্মের সন্ধান

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯:১৬ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৬, ২০২১ | আপডেট: ৯:১৬:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৬, ২০২১

আঁকার বিষয় একটি বুনো শুয়োর। ৫৩ ইঞ্চি বাই ২১ ইঞ্চির শুয়োরের ছবিতে রং চড়ানো হয়েছে লাল গুঁড়ো দিয়ে। ক্যানভাস নয়, ইন্দোনেশিয়ায় ওই ছবি আঁকা হয়েছে গুহার ভিতর, পাথরের উপরে। ওই চিত্রকর্ম নিয়েই এখন শোরগোল বিজ্ঞানী মহলে। প্রত্নতত্ত্ববিদদের একাংশের দাবি, বিশ্বে কোনও প্রাণীর প্রাচীনতম গুহাচিত্র এটিই। বয়স বেশি নয়, মাত্র ৪৫,৫০০ বছর!

ইন্দোনেশিয়ায় সুলাওয়েসি দ্বীপের প্রত্যন্ত উপত্যকার লেয়াং তেদংঞ্জ গুহায় প্রাগৈতিহাসিক মানুষের আঁকা প্রমাণ মাপের ওই শুয়োর সম্প্রতি আবিষ্কার করেছেন প্রত্নতত্ত্ববিদরা। সায়েন্স অ্যাডভান্সেস জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষণায় এমন দাবি করেছেন প্রত্নতাত্ত্বিকরা।

ইন্দোনেশিয়ার পিএইডি ছাত্র বাসরান বুরহানের টিম তাদের জরিপের অংশ হিসেবে ২০১৭ সালে ইন্দোনেশীয় কর্মকর্তাদের সাথে সুলাওয়েসি দ্বীপ পরিদর্শনে যায়। সেখানেই তারা এই চিত্রকর্মটি আবিষ্কার করে। গ্রিফিথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞরা, যারা ইন্দোনেশিয়ার প্রত্নতাত্ত্বিকদের সাথে যৌথভাবে কাজ করেন, তাদের ওয়েবসাইটে এসব তথ্য জানানো হয়।

গ্রিফিথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘অস্ট্রেলিয়ান রিসার্চ সেন্টার ফর হিউম্যান এভুলিউশনের’ গবেষক অ্যাডাম ব্রুম বলেন, ‘‘আমাদের জানা মতে এই গুহায় পাওয়া ৪৫ হাজার পাঁচশো বছরের পুরনো এই চিত্রকর্মটি বিশ্বের প্রাচীনতম শিল্পকর্ম।”

বন্য শূকরের চিত্রকর্মটি ১৩৬ সেন্টিমিটার চওড়া এবং ৫৪ সেন্টিমিটার লম্বা। দেখতে অনেকটা পুরুষ শূকরের মতো। ছবিতে শূকরের পেছনে ওপরের দিকে দুই হাতের ছাপ এবং মুখোমুখি আরও দুটো শূকর রয়েছে, যা বেশ অস্পষ্ট। গবেষকদের মতে ছবিতে গাঢ় লাল রঙের মিশ্রন ব্যবহার করা হয়েছে। স্থানীয়রা এর আগে কখনো এই পেইন্টিংটি দেখেনি বলে জানিয়েছে।

সেই প্রস্তর যুগ থেকে সুলাওয়েসি দ্বীপে মানুষ শূকর শিকার করছে আর এই চিত্রকর্মেও তার ছাপ রয়েছে বলে মনে করেন বুরহান।

বিশেষজ্ঞ ম্যাক্সিম অবার্ট জানান, যারা চিত্রকর্মটি তৈরি করেছেন তারা তাদের মতোই আধুনিক ছিলেন এবং তাদের পছন্দমতো চিত্রায়িত করার ক্ষমতা এবং সরঞ্জাম সবই সে যুগেও তাদের ছিল।

সূত্র: ডয়চে ভেলে।