ইরানের সবচেয়ে বড় সামরিক জাহাজ উন্মোচন, এ যেন ভ্রাম্যমাণ দ্বীপ

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯:০২ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৩, ২০২১ | আপডেট: ৯:০২:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৩, ২০২১

ইরানের নৌবাহিনীতে আনুষ্ঠানিকভাবে যুক্ত হয়েছে তাদের সবচেয়ে বড় সামরিক জাহাজ। পারমাণবিক কর্মসূচি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তীব্র উত্তেজনার মধ্যে সামুদ্রিক এক ক্ষেপণাস্ত্র মহড়ায় নৌবাহিনীতে যুক্ত হয় আইআরএস মাকরান। নিজ দেশে তৈরি জাহাজটি পাঁচটি হেলিকপ্টার বহনে সক্ষম। একই সঙ্গে ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ায় সক্ষম আরও একটি জাহাজ ইরানি নৌবাহিনীতে যুক্ত হয়।

ইরানের নৌবহরে এটিই সবচেয়ে বড় সামরিক জাহাজ। ১২১ হাজার টনের এই সামরিক জাহাজকে ভ্রাম্যমাণ দ্বীপ হিসেবে অভিহিত করা হচ্ছে।

আজ (বুধবার) মাকরান নামের এ জাহাজটি আনুষ্ঠানিকভাবে ইরানি নৌবাহিনীতে যুক্ত হয়েছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ইরানের সামরিক বাহিনীর চিফ অব স্টাফের চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মোহাম্মদ বাকেরি এবং সেনাবাহিনীর চিফ কমান্ডার মেজর জেনারেল আব্দুর রহিম মুসাভিসহ কয়েক জন শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা।

ভারত মহাসাগরের উত্তরাঞ্চলে, এডেন উপসাগরের বাবুল মান্দেব এবং লোহিত সাগরের মতো এলাকায় ইরানের সামরিক বাহিনীর অভিযানের সময় এই জাহাজ লজিস্টিক সাপোর্ট দেবে। এ ধরনের জাহাজকে ভ্রাম্যমাণ বন্দরও বলা হয় এবং এমন সামুদ্রিক অভিযানের সময় জাহাজ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

জাহাজটির ডেকে হেলিকপ্টার, গানশিপ এবং ড্রোন ওঠানামাও করতে পারবে।

এছাড়া, নৌবাহিনীর জন্য হোভারক্রাফট থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের নৌযান বহন করতে পারবে। উত্তাল সমুদ্রের মারাত্মক প্রতিকূল অবস্থার ভেতরেও এ জাহাজ তার মিশন চালাতে পারবে।

সূত্র: পার্সটুডে।