ইসরায়েলি যুদ্ধবিমান ছবি তুলে ‘পালালো’ ইরানের আকাশের

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১:০০ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২৩, ২০১৯ | আপডেট: ১:০০:পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২৩, ২০১৯
ছবিঃ সংগৃহিত

ইরানের আকাশসীমায় যুক্তরাষ্ট্রে নির্মিত ইসরায়েলি যুদ্ধবিমান এফ-৩৫ প্রবেশ করে বিভিন্ন স্পর্শকাতর জায়গার ছবি তুলে নিরাপদে নিজ দেশে ফিরে যেতে সক্ষম হয়েছে।

এর প্রতিক্রিয়ায় কোনো বাধা দিতে না পারা এবং ঘটনাটি সম্পূর্ণ চেপে যাওয়ায় দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগে সম্প্রতি ইরানের বিমান বাহিনীর কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ফারজাদ ইসমাইলিকে বহিস্কার করেছেন দেশটির সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খোমেনি। খবর দ্য ন্যাশনাল ইন্টারেস্ট।

চীর প্রতিদ্বন্দ্বী ও শত্রুভাবাপন্ন দেশ ইরানের আকাশে ইসরায়েলি যুদ্ধবিমানের নির্বিঘ্নে প্রবেশের এ সংবাদ গত শনিবার প্রকাশ করে কুয়েতের দৈনিক আল জারিদা সংবাদপত্র। তাদের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১০ সাল থেকে দেশটির বিমান বাহিনীর কমান্ডারের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ফারজাদ ইসমাইলি।

কিন্তু ২০১৮ সালের মার্চ মাসে ইরানের আকাশে ইসরায়েলের যুদ্ধবিমানের অবাধে প্রবেশ এবং স্পর্শকাতর স্থানের ছবি তুলে নিরাপদে ফিরে যাওয়া রোধ করতে পারেননি তিনি। শুধু তাই নয়, এমন ঘটনার কোনো তথ্যও দেশটির সর্বোচ্চ ক্ষমতার অধিকারী ও সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খোমেনিকে জানাননি তিনি

ফলে দীর্ঘ তদন্ত শেষে গত ২৯ মার্চ ধর্মীয় খোমেনি নেতা তাকে বহিস্কার করে তার জায়গায় নির্বাহী কমান্ডারকে দায়িত্ব দিয়েছেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৮ সালের মার্চের ওই ঘটনা দেশটির শক্তিশালী রেভ্যুলেশন গার্ডসের গোয়েন্দা বিভাগ এবং গোয়েন্দা মন্ত্রণালয়ের যৌথ উদ্যোগে তদন্ত শেষ হওয়ার পরই খামেনি এ সিদ্ধান্ত নেন।

ইরানি গোয়েন্দাদের তদন্তে বেরিয়ে আসে ইসরায়েলের যুদ্ধবিমান এফ-৩৫ বা আধির নামের ওই যুদ্ধবিমান ইরানের তেহরান, কারাজরাক, স্পাহান, সিরাজ ও বন্দর আব্বাসের আকাশে ঘুরে নির্বিঘ্নে ছবি তুলে ফিরে গেছে। যা ইরানের আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কোনোভাবেই সনাক্ত করতে পারেনি।

এদিকে এ ঘটনা রাশিয়া ও ইসরায়েল যৌথভাবে করেছে বলে অভিযোগ করেছেন ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খোমেনি। কারণ সেসময় ইরানে রাশিয়ার নির্মিত রাডার মোতায়েন ছিলো। সেটাও কোনো ধরনের কিছু সনাক্ত করতে পারেনি। এর পিছনের মূল কারণ হিসেবে তিনি বলেছেন, ইসরায়েলকে আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা এস-৩০০ এর রাডারের কোড সরবরাহ করেছে রাশিয়া। ফলে তারা এটা সনাক্ত করতে ব্যর্থ হয়েছে।