ইসরায়েলি হামলায় পুরো পরিবার নিহত, আছে কেবল ৫ মাসের শিশু

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:০৬ অপরাহ্ণ, মে ১৬, ২০২১ | আপডেট: ৮:০৬:অপরাহ্ণ, মে ১৬, ২০২১

ইসরায়েলি বিমান হামলায় গাজার পশ্চিমে শরণার্থীশিবিরে এক পরিবারের ১০ সদস্য নিহত হয়েছেন। শুধু বেঁচে আছে ওই পরিবারের পাঁচ মাস বয়সী এক শিশু। বিমান হামলা থেকে বেঁচে গেলেও গুরুতর আহত হয়েছে শিশুটি।

ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের মধ্যে আজ রোববার (১৬ মে) সপ্তম দিনের মতো লাগাতার সংঘর্ষ চলছে।

স্থানীয় সময় গতকাল শনিবার গাজার পশ্চিমে শরণার্থীশিবিরে ইসরায়েলি বিমান হামলা থেকে বেঁচে যাওয়া শিশুটির নাম ওমর আল হাদিদি। হামলায় শিশুটির মা, চার ভাইবোন ও স্বজনেরা নিহত হন।

হামলার সময় শিশুটির বাবা মোহাম্মদ আল হাদিদি বাড়িতে ছিলেন না। তিনি রয়টার্সকে বলেন, ‘ওই শরণার্থীশিবির থেকে কোনো রকেট হামলা চালানো হয়নি। সেখানে শুধু শিশু ও নারীরা ছিল। কোন অপরাধে তাদের এভাবে মেরে ফেলা হলো?’

ওমরের চিকিৎসক বলেন, ‘পাঁচ মাস বয়সী শিশুটির অবস্থা ভালো না। তার পায়ের হাড় ভেঙে গেছে। সারা শরীরে আঘাতের দাগ।’

স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা বলছেন, আজ ভোরে গাজায় ইসরায়েলের বিমান হামলায় কমপক্ষে চারজন নিহত হয়েছেন। ফিলিস্তিনিরা তেল আবিবকে লক্ষ্য করে রকেট ছুড়েছে। ইতিমধ্যে তেল আবিব ছেড়ে অনেক ইসরায়েলি নিরাপদ জায়গায় পালিয়ে গেছেন।

রয়টার্সের খবরে জানা যায়, গত সোমবার সহিংসতা শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত গাজায় কমপক্ষে ১৪৯ জন নিহত হয়েছেন। স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা বলছেন, নিহতদের মধ্যে ৪১ জন শিশু।

ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের মধ্যে সংঘর্ষের শুরু গত সপ্তাহে। জেরুজালেমের আল-আকসায় পবিত্র জুমাতুল বিদা আদায়কে কেন্দ্র করে এই সংঘর্ষের সূত্রপাত। বলা হচ্ছে, বিগত কয়েক বছরের মধ্যে ইসরায়েলি ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে এটিই সবচেয়ে বড় সংঘর্ষের ঘটনা। বড় ধরনের সংঘর্ষের সূচনা হয় সোমবার পূর্ব জেরুজালেমে। সেই সংঘর্ষ অব্যাহত রয়েছে।

সুত্র: বিবিসি ও রয়টার্স।