ইসলামী অনুশাসন মেনে চললে করোনা মোকাবেলা সম্ভব : ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত: ৮:৫৮ অপরাহ্ণ, মে ১৪, ২০২১ | আপডেট: ৮:৫৮:অপরাহ্ণ, মে ১৪, ২০২১
জামালপুরের উত্তর সিরাজাবাদ খানপাড়া জামে মসজিদে মুসল্লিদের সাথে ঈদের নামাজ শেষে বক্তব্য রাখেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান। ছবি: সংগৃহীত

দৈনন্দিন জীবনে ইসলামী অনুশাসন মেনে চললে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসরে মহামারি মোকাবিলা করা সম্ভব বলে মন্তব্য করেছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান।

শুক্রবার (১৪ মে) পবিত্র ঈদ উল ফিতরের দিন সকাল সাড়ে ৯টায় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী তার নিজ নির্বাচনী এলাকা জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলার উত্তর সিরাজাবাদ খানপাড়া জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত জামাতে স্থানীয় মুসল্লিদের সঙ্গে ইসলামী আকিদা ও সরকারি স্বাস্থ্যবিধি মেনে পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করেন। এরপর তিনি মুসল্লিদের উদ্দেশে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন।

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বলেন, ইসলাম ধর্ম হলো সৌহার্দ্য, ভ্রাতৃত্ব ও শান্তির ধর্ম। ইসলাম ধর্ম পালনের মাধ্যমেই একজন মুসলিম আদর্শ মানুষ হিসেবে গড়ে ওঠেন। ইসলাম ধর্মে বলা হয়ে থাকে, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতাই ঈমানের অঙ্গ। আর এই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা যে কাউকেই যেকোনো রোগবালাই থেকে সুরক্ষিত রাখে। তাই দৈনন্দিন জীবনে ইসলামী অনুশাসন মেনে চললে প্রাণঘাতী করোনা মহামারিও মোকাবেলা করা সম্ভব।

তিনি বলেন, টানা এক মাস সিয়াম সাধনার পর পবিত্র ঈদুল ফিতর বিশ্ব মুসলিম জাহানের কাছে অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ ও মহিমান্বিত একটি দিন। বিশ্বের প্রত্যেক মুসলমান ব্যক্তিবিশেষের জন্যই মহান আল্লাহ তায়ালা প্রদত্ত রহমত ও খুশির দিন হলো পবিত্র ঈদুল ফিতর। করোনা মহামারিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহ্বানে সাড়া দিয়ে আজকে সারা দেশে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদ উদযাপিত হচ্ছে। করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুহার কমিয়ে আনতে যার যার অবস্থান থেকেই উদ্যোগী হয়ে সরকারকে সহযোগিতা করতে হবে। ইসলামী অনুশাসনের পাশাপাশি সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে করোনার সংক্রমণ দ্রুত কমানো সম্ভব হবে। সবাইকে ধৈর্যের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধভাবে করোনা মহামারি মোকাবেলায় আত্মনিয়োগ করার আহ্বান জানান ধর্ম প্রতিমন্ত্রী।

এ ছাড়া ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বর্তমান সরকারের আমলে সারা দেশে ৯ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ৫৬০টি মডেল মসজিদ নির্মাণসহ বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের চিত্র তুলে ধরেন। তিনি জানান, সারা দেশে ১১০টি দারুল আরকান মাদরাসার ২২০ জন শিক্ষক, যারা বেতন পাননি ১৭ মাস ধরে, তাদের জন্য সরকার একটি বিশেষ প্রকল্প গ্রহণ করেছে। অনতিবিলম্বে তাদের সেই বেতনের ব্যবস্থাও করা হবে।

পরে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী স্বাস্থ্যবিধি মেনে ইসলামপুর ডাকবাংলোয় স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতারা ও সাধারণ মানুষজনের সঙ্গে ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এ সময় ইসলামপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আইনজীবী এস এম জামাল আব্দুন নাছের, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এস এম মাজহারুল ইসলাম ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাজেদুল ইসলামসহ অন্য সরকারি কর্মকর্তা ও আওয়ামী লীগ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।