ইয়াবা পাচারে এসআই গ্রেপ্তার

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১:৫১ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১, ২০১৮ | আপডেট: ১:৫১:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১, ২০১৮
ফাইল ছবি

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) আটক করা একটি ইয়াবা চালানের সঙ্গে সম্পৃক্ততায় প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়ার পর বদরুদ্দোজা মাহমুদ নামে পুলিশের একজন উপ-পরিদর্শককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

শুক্রবার রাতে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে নগরীর খুলশী থানা পুলিশ। ইয়াবা চালান আটকের ঘটনায় চট্টগ্রামের মিরসরাই থানায় দায়ের হওয়া মামলায় শনিবার দুপুরে তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

মিরসরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইরুল ইসলাম জানান, খুলশী থানা পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে ইয়াবার চালানটির সঙ্গে বদরুদ্দোজার জড়িত থাকার তথ্য মিলেছে। সেজন্য তাকে ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। খুলশী থানা থেকে বদরুদ্দোজাকে তাদের হেফাজতে নিয়েছেন বলে জানান ওসি।

নগর পুলিশের উপ-কমিশনার (উত্তর) আব্দুল ওয়ারিশ খান জানান, ফার্নিচার বোঝাই একটি ট্রাকে তল্লাশি করে ২৯ হাজার ইয়াবা উদ্ধার করে র‌্যাব। সেই ফার্নিচারগুলো বদরুদ্দোজা ঢাকায় পাঠাচ্ছিলেন বলে তথ্য পেয়েছে র‌্যাব। যদিও তার (বদরুদ্দোজা) কাছ থেকে ইয়াবা পাওয়া যায়নি, তারপরেও একটা অভিযোগ যেহেতু উঠেছে এবং তার বর্তমান অবস্থান যেহেতু সিএমপিতে, সেজন্য আমরা তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছিলাম।

নগরীর হাই লেভেল রোডের বাসায় তল্লাশি করে বদরুদ্দোজাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য খুলশী থানায় নেয়া হয়েছিল বলে জানান ওয়ারিশ।

বদরুদ্দোজা সম্প্রতি ঢাকা জেলা গোয়েন্দা পুলিশ থেকে বদলি হয়ে চট্টগ্রাম নগর পুলিশে যোগ দেন। পরবর্তী পদায়নের জন্য তিনি নগর পুলিশ লাইনেই সংযুক্ত আছেন।

শুক্রবার মিরসরাইয়ের নিজামপুর এলাকায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের একটি ট্রাক থেকে ২৯ হাজার ২৮৫ টি ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় ট্রাক চালক মো. মোক্তার (২৪) ও তার সহকারী মো. সজীব ওরফে বাবুকে (১৯) গ্রেপ্তার করা হয়।

র‌্যাব-৭ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) এএসপি মিমতানুর রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ট্রাকে বহনকারী একটি ফাইল কেবিনেট থেকে ইয়াবাগুলো উদ্ধার করা হয়। ফাইল কেবিনেটে একটি ডায়েরি পাওয়া যায়, যেখানে এসআই বদরুদোজা মাহমুদের বিপি নম্বরসহ সিল ও মোবাইল নম্বর, ঢাকা জেলা (উত্তর) গোয়েন্দা পুলিশ লেখা সিল আছে। এছাড়া চালকের কাছ থেকে ওই পুলিশ কর্মকর্তার ভিজিটিং কার্ডও পাওয়া গেছে।

তবে এ সংক্রান্ত মামলার এজাহারে বিষয়টির উল্লেখ থাকলেও বদরুদ্দোজাকে আসামি করা হয়েছিল না।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, বুধবার বিকেলে এসআই বদরুদোজার ঢাকা মোহাম্মদপুরের দুই নম্বর রোডের বাসা থেকে মালামাল নিয়ে চট্টগ্রামে আসে ট্রাক চালক। লালখান বাজার হাই লেভেল রোডে মালামালগুলো নামিয়ে চলে যাবার সময় এস আই বদরুদোজা চালককে ফোন করে চট্টগ্রাম থেকে কিছু ফার্নিচার নিয়ে ঢাকায় যেতে বলেন। বিভিন্ন স্থান থেকে চালক মালামালগুলো গাড়িতে তুলে বৃহস্পতিবার রাতে রওনা করেন এবং শুক্রবার ট্রাকটি আটক করা হয়।