ই-রিকুইজিশনের সময় নিয়ে সুখবর দিলো এনটিআরসিএ

প্রকাশিত: ৭:৫৮ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৪, ২০২০ | আপডেট: ৭:৫৮:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৪, ২০২০

শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের ই-রিকুইজিশনের সময়সীমা বাড়িয়ে আগামী ৩০ জানুয়ারি ২০২০ পর্যন্ত করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার এনটিআরসিএ’র ওয়েবসাইটে এ সংক্রান্ত একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকোশ করে বিষয়টি জানানো হয়েছে।

প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয় বর্নিত সময়ের মধ্যে ই রিকুইজিসন সংক্রান্ত কার্যক্রম সম্পন্ন করতে হবে এবং উক্ত সময়সীমা অতিক্রান্ত হবার পর আর ই-রিকুইজিসনের সময় বৃদ্ধি করা হবে না।

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এন্ট্রি লেভেলে শিক্ষক নিয়োগের লক্ষ্যে প্রার্থী বাছাইয়ের কাজ করে এনটিআরসিএ। বাছাই করা প্রার্থীদের আর কোনও পরীক্ষা দিতে হয় না। ইতোমধ্যে দুইটি চক্রে ২০১৬ খ্রিষ্টাব্দে ও ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এন্ট্রি লেভেলের শিক্ষক নিয়োগে প্রার্থী সুপারিশ করেছে এনটিআরসিএ। সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তৃতীয় চক্রে শিক্ষক নিয়োগ দিতে কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এ লক্ষ্যে শূন্যপদের তথ্য সংগ্রহ শুরু হয়েছে। গত ১৪ জানুয়ারি থেকে প্রতিষ্ঠান প্রধানরা শূন্যপদের তথ্য দিতে পারছেন।

এনটিআরসিএর এক কর্মকর্তা বলেন, শিক্ষক নিয়োগের শূন্যপদের তথ্য সংগ্রহে প্রতিষ্ঠান প্রধানদের ই-রেজিস্ট্রেশন সফলভাবে শেষ হয়েছে। গত ১৪ জানুয়ারি থেকে ই-রিকুইজিশন বা শূন্যপদের তথ্য সংগ্রহ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। ২৩ জানুয়ারি পর্যন্ত এ প্রক্রিয়া চলার কথা থাকলেও সে সময় বাড়িয়েছে এনটিআরসিএ। আগামী ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত ই-রিকুইজিশন বা শূন্যপদের তথ্য দিতে পারবে প্রতিষ্ঠানগুলো। তবে, ই রিকুইজিশনের সময় আর বাড়ানো হবে না।

এছাড়া যেসকল বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ই রিকুইজিসন প্রদান করেছেন কিন্তু ই-রিকুইজিসন ভুল করেছেন অর্থাৎ সংশোধন করা প্রয়োজন সে সকল প্রতিষ্ঠানকে এনটিআরসিএ’র ই-মেইলে প্রতিষ্ঠানের EIIN নম্বর উল্লেখ করে আবেদন প্রেরণ করার জন্য আগামী ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত সময় দেয়া হয়েছে। বর্ণিত ইমেইলে শুধুমাত্র প্রাপ্ত আবেদন আমলে নিয়ে প্রতিষ্ঠনকে সংশোধনের সুযোগ দেয়া হবে।