‘উপাচার্য’ বানান জানেন না ভিসি!

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:১৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৯ | আপডেট: ৮:১৮:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৯

গতকাল (শনিবার) বশেমুরবিপ্রবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর আতর্কিত হামলা চালায় বহিরাগত সন্ত্রাসীরা। শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, উপাচার্যের মদদেই এই হামলা চালানো হয়। বশেমুরবিপ্রবি প্রশাসনের তুচ্ছ কারণে বহিষ্কার এবং উপাচার্যের স্বৈরাচারী আচরণ, দুর্নীতি, শিক্ষার্থীদের গালিগালাজ ইত্যাদি কারণে উপাচার্যের অপসারণ চেয়ে আন্দোলন করেছেন শিক্ষার্থীরা।

এদিকে আজ রোববার শিক্ষার্থীদের উপর বহিরাগতদের হামলার নিন্দা জানিয়েছেন বশেমুরবিপ্রবির উপাচার্য প্রফেসর ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিন। আর এখানেই বাধে বিপত্তি। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যাডে ভিসির স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে দেখা যায় ‘উপাচার্য’ বানান ভুল, যেখানে লেখা রয়েছে উপচার্য। যা নিয়ে ফেসবুকে নিন্দার ঝড় বয়ে যাচ্ছে।

শিক্ষার্থীরা ফেসবুকে এই বিবৃতি নিয়ে নানারকম মন্তব্য করছেন। এক শিক্ষার্থী লিখেন, উপাচার্য বানান জানেন না ভিসি। আরেক শিক্ষার্থী লিখেন, যে উপাচার্য প্রাইমারি স্কুলের প্রধান শিক্ষক হওয়ার যোগ্যতা রাখে না, তাকে বশেমুরবিপ্রবির উপাচার্য বানানো হয়েছে। আমরা তার অপসারণ দাবি করছি।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বশেমুরবিপ্রবি) শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে রোববার মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থীরা। হামলার ঘটনায় বিচার দাবিতে প্রগতিশীল ছাত্রজোট, বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র সংরক্ষণ পরিষদ এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া গোপালগঞ্জ জেলার সাধারণ শিক্ষার্থীরা দফায় দফায় মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছেন।

মানববন্ধনে বক্তারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বশেমুরবিপ্রবি)-এর শিক্ষার্থীদের উপর হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং জড়িতদের বিচার দাবি করেন। উপাচার্যের নানা অপকর্ম উল্লেখপূর্বক তার অপসারণের দাবিও জানান তারা।

উল্লেখ্য, শনিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর হামলায় তিন সাংবাদিকসহ ২০ জন আহত হয়েছেন। বাইরে থেকে শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে প্রবেশের সময় তাদের ওপর অতর্কিতে হামলা হয়। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের বাইরে উপজেলার মোড়, গোবরা, হাসপাতাল মোড়, নীলার মাঠ, নবীনবাগ, সোবহান সড়ক, সোনাকুড় এলাকায় এসব হামলা করা হয়েছে।