উহান থেকে ইতালি, ভারত থেকে যদি বাংলাদেশে!

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২:৫৭ অপরাহ্ণ, মে ১১, ২০২১ | আপডেট: ২:৫৭:অপরাহ্ণ, মে ১১, ২০২১

৯ জানুয়ারি ২০২০ বাংলাদেশে এসেছিলাম। টার্গেট ছিল ৬ ফেব্রুয়ারি ভেনিস ফিরে যাওয়া। ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে ভেনিস কার্নেবাল শুরু। আমরা যারা ভেনিসে ব্যবসা করি তাদের শীতের মৌসুমটা অনেকটাই স্লো পর্যটক শূন্য।

তবে নভেম্বর থেকে মধ্যে মার্চ এই পাঁচ মাসের সময়টাতে দুইটি গুরুত্বপূর্ণ উৎসবকে কেন্দ্র করে কিছু সময়ের জন্য জেগে উঠে ইতালির ভেনিস পর্যটন নগরী। প্রথমটি মাত্র দেড় সপ্তাহের ক্রিসমাস ও ইংরেজি নববর্ষ ছুটি, অপরটি ৩ সপ্তাহের কর্নেবাল অনুষ্ঠান।

আমরা প্রথম অনুষ্ঠানটি শেষ করে ভেনিস ত্যাগ করে দ্বিতীয় অনুষ্ঠান কার্নেবাল শুরুর পূর্বে ৬ ফেব্রুয়ারি ভেনিস পৌঁছাই। ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে ভেনিস কার্নেবাল শুরু।

কার্নেবাল মানে মাস্ক আর রাজসিক পোশাক বিক্রির মহোৎসব। রাস্তার হাজার হাজার মানুষের মুখে মুখোশ। বিভিন্ন রঙের বাহারি মুখোশ রঙিন হয়ে ওঠে ভেনিস নগরী। ওই সময়টাতে প্রতিটি দোকানে প্রতিদিন বিক্রি হয় হাজার হাজার ইউরো। আমাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেও ভিড় থাকে অনেক।

সেই লাভের আশায় আমরাও পৌঁছে ছিলাম ভেনিস। উদ্দেশ্যে কার্নেবাল অনুষ্ঠান থেকে ব্যবসায় লাভ করা। ৩ সপ্তাহের মধ্যে প্রথম সপ্তাহ তেমন জনসমাগম হয় না। ধরা যায় প্রস্তুতিমূলক সপ্তাহ এইটি।

দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে জমতে শুরু করে কার্নেবাল অনুষ্ঠান। তিল ধারণের স্থান থাকে না ওই সময়। বিশেষ করে সপ্তাহান্তে নিঃশ্বাস নেয়াও কঠিন হয়ে পরে ভেনিসে। সাগরে ভাসমান ভেনিসে নেই কোন গাড়ি চলাচলের রাস্তা।

পায়ে হাঁটা বা নৌপথ যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম। ভেনিসের গোন্ডলা নৌকা ভুবন বিখ্যাত। ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গুলো গুছিয়ে নিয়ে ছিলাম দুইদিনের মধ্যেই। ব্যবসায় মন নিবেশ করলাম। দোকানের জন্য কিনলাম অনেক টাকার মালামাল।

অন্যদিকে ওই সময়টায় বিশ্ব মিডিয়া জুড়ে আস্তে আস্তে সরব হচ্ছিল ওহানের করোনা পরিস্থিতি সম্পর্কে। ইতিমধ্যে রাজধানী রোমে চীন ফেরত এক দম্পতির শরীরে কোভিড ১৯ শনাক্ত হয়েছে।

তাদেরকে রোমের বিখ্যাত সংক্রামণ হাসপাতালে চিকিৎসার দেওয়া হয়েছিল। টেলিভিশন ও পত্রিকায় প্রতিনিয়ত বুলেটিন আসছিল ওই দুই রোগীর আপডেট নিয়ে। ওহানের করুন পরিস্থিতি নিয়ে রেগুলার রিপোর্ট আসছিল টেলিভিশনে।

ইতালির সংক্রামণ বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের কণ্ঠে ছিল আত্মনির্ভরশীল ভাষ্য। তাদের যুক্তি ছিল তারা করোনা ভাইরাস নিয়ন্ত্রণ সহজেই করতে পারবেন। সাস কেভিড ২ ভাইরাসের প্রতিষেধক আবিষ্কার করেছিলেন ইতালির সাকো হাসপাতাল ও স্টেট ইউনিভার্সিটি অব মিলান।

এতে করে তাদের আত্মবিশ্বাস ছিল আকাশ চুম্বী। করোনা গোত্রের সাস কোভি ২ যেহেতু ইতালির গবেষকরা কয়েক বছর পূর্বে সফল ভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হয়েছিল সুতরাং একই গোত্রের কোভিড ১৯ সহজেই নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হবেন তারা।

মোটামুটি ১২ থেকে ১৫ ফেব্রুয়ারির দিনগুলোতে ইতালির মানুষ কিছুই বুঝতে পারেনি যে ইতালি জুড়ে কোভিড ১৯ এর থাবা মানুষের শরীরে বাসা বাঁধতে শুরু করেছে।

দৃশ্যপট পরিবর্তন হচ্ছিল দ্রুতগতিতে। দুই সপ্তাহের মধ্যে লকডাউনের আওতায় চলে আসবে তা কল্পনাও করার মতো ছিল না।