‘এক সপ্তাহেই’ ধর্ষণ মামলার বিচার শেষ

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১:৩৩ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১৯, ২০২০ | আপডেট: ১২:১০:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৯, ২০২০

শিশু ধর্ষণের একটি মামলার বিচার শুরুর এক সপ্তাহের মধ্যেই শেষ করে সোমবার রায়ের দিন ধার্য করা হয়েছে। বাগেরহাট নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক জেলা ও দায়রা জজ মো. নূরে আলম এই মামলার রায় ঘোষণার দিন ধার্য করেছেন। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী এপিপি রনজিৎ কুমার মন্ডল এ কথা জানান।

গত ১২ অক্টোবর মোংলা উপজেলায় আশ্রয়ন প্রকল্প এলাকায় সাত বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণের এই মামলার অভিযোগ গঠন হয়। আর রবিবার (১৮ অক্টোবর) রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক শেষ হয়।
এই মামলার আসামি আব্দুল মান্নান সরদার মোংলা উপজেলার মাকোড়ডোন গ্রামের ভূমিহীন আশ্রয়ন প্রকল্প এলাকার প্রয়াত আহম্মদ সরদারের ছেলে।

মামলার নথি থেকে জানা গেছে, মাকোড়ডোন গ্রামের ভূমিহীন আশ্রয়ন প্রকল্প এলাকায় পিতৃহারা সাত বছর বয়সী শিশুটি তার মামার কাছে থেকে বড়ো হচ্ছে। গত ৩ অক্টোবর বিকালে প্রতিবেশী আব্দুল মান্নান সরদার বিস্কুট খাওয়ার প্রলোভন দিয়ে নিজের ঘরে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করে।

ওইদিন রাতেই মেয়েটির মামা মোংলা থানায় আব্দুল মান্নানের বিরুদ্ধে মামলা করলে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মোংলা থানার এসআই বিশ্বজিত মুখার্জ্জী ১১ অক্টোবর আদালতে অভিযোগপত্র দেন।

বাগেরহাট নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এর বেঞ্চ সহকারী গোপাল চন্দ্র পাল বলেন, গত ১২ অক্টোবর মামলাটির অভিযোগ গঠন করা হয়। ১৩ অক্টোবর বাদীপক্ষের ১৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়।

১৪ অক্টোবর চিকিৎসক, বিচারিক হাকিম, নারী পুলিশ সদস্য এবং মামলার তদন্ত কর্মকর্তার সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়। ১৫ অক্টোবর আসামির আত্মপক্ষ সমর্থনে সাফাই সাক্ষ্য নেওয়া হয়্।

গোপাল চন্দ্র বলেন, “রবিবার বাদী ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে সোমবার রায়ের দিন ঘোষণা করেন ট্রাইব্যুনালের বিচারক।”

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী এপিপি রনজিৎ কুমার মন্ডল বলেন, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে বলা আছে কোনো ধর্ষণের ঘটনায় আসামি সঙ্গে সঙ্গে ধরা পড়লে ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে বিচার কাজ সম্পন্ন করা যাবে। এই শিশু ধর্ষণের মামলাটি তারই প্রমাণ।

বাগেরহাটের আদালতের এই সংক্ষিপ্ত সময়ে রায় ঘোষণার মধ্যে দিয়ে একটা দৃষ্টান্ত স্থাপন হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।