‘এটা কি তোর বাপের রাস্তা’ বলেই পরিচ্ছন্নতাকর্মীকে পেটালেন সাব্বির

টিবিটি টিবিটি

স্পোর্টস ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯:২৭ অপরাহ্ণ, মে ৩১, ২০২০ | আপডেট: ১০:০৬:অপরাহ্ণ, মে ৩১, ২০২০
ফাইল ছবি

এবার রাজশাহী সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্নতা বিভাগের এক কর্মচারীকে পিটিয়েছেন বলে ক্রিকেটার সাব্বির রহমান রুম্মনের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। গাড়ি পার্কিং নিয়ে তর্ক হওয়ার এক পর্যায়ে তার গায়ে হাত তোলেন সাব্বির।

আজ রবিবার বিকাল পৌনে ৫ টার দিকেনগরীর বেলদারপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। সাব্বিরের হাতে মারপিটের শিকার ওই কর্মচারীর নাম বাদশা মিয়া (৪৫)। এ নিয়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

মহানগরীর বোয়ালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিবারণ চন্দ্র বর্মন বলেন, ‘বয়স কম। ছোট মানুষ, পরিচ্ছন্নতাকর্মীক চড়-থাপ্পড় মেরেছেন বলে শুনেছি। থানার টহল পুলিশ গিয়ে তাকে থামিয়েছে। স্থানীয়রাও বিষয়টি ফোন করে জানিয়েছেন। ২১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর বিষয়টি মীমাংসা করে দিতে চেয়েছেন।

এদিকে স্থানীয়দের অভিযোগ, বিকেলে সাব্বিরের বাড়ির সামনে ভ্যানে আবর্জনা তুলছিলেন বাদশা নামের রাসিকের একজন পরিচ্ছন্নতাকর্মী। সেই সময় সাব্বির গাড়ি নিয়ে বাড়িতে ঢুকছিলেন। কিন্তু ভ্যানের কারণে ঢুকতে পারছিলেন না। তিনি বাদশাকে দ্রুত ভ্যান সরাতে বলেন। কিন্তু দেরি হওয়ায় ওই পরিচ্ছন্নতাকর্মীর সাথে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন। এরপর গাড়ি থেকে নেমেই হঠাৎ তার গায়ে হাত তোলেন। তিনি ওই পরিচ্ছন্নতাকর্মীকে চড়-থাপ্পড় মারতে থাকেন।

সাব্বিরকে না চিনে পরিচ্ছন্নতাকর্মীও উত্তেজিত হয়ে পড়েন। জড়ো হয় আশপাশের মানুষ। সেই সময় সড়ক দিয়ে বোয়ালিয়া থানার টহল পুলিশ যাচ্ছিল। তারা গিয়ে সাব্বিরকে শান্ত করেন। এরপর পরিচ্ছন্নতাকর্মী বাদশা বিষয়টি স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর নিযাম-উল-আযীমের কাছে গিয়ে অভিযোগ দেন। পরে কাউন্সিলর থানার ওসিকে ফোন করে বিষয়টি মীমাংসা করে দিতে চান।

তবে রোববার সন্ধ্যায় বক্তব্যের জন্য ক্রিকেটার সাব্বির রহমানকে একাধিকবার ফোন করা হয়। কিন্তু তিনি ফোন ধরেননি।

এ ব্যাপারে মহানগরীর ২১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নিযাম-উল-আজিম বলেন, ‘ক্রিকেটার সাব্বির বাংলাদেশের একজন তারকা খেলোয়াড়। সে যেটি করেছে অত্যন্ত গর্হিত একটি কাজ করেছে। তার বাবার বয়সের সেই কর্মচারিকে গালে ৩টি চড় মেরেছে। এ ঘটনায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে আমি নিজে দায়িত্ব নিয়ে পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের বাড়িতে পাঠিয়েছি। পরে আমার ওয়ার্ডের সচিবকে দায়িত্ব দিয়েছে বিষয়টি মীমাংসার জন্য। রাতেই উভয়ের মধ্যে বিষয়টি মীমাংসা হবে বলে আশা করি’।

এদিকে সমালোচনা যেন সাব্বির রহমান রুমনের পিছু ছাড়ছেই না। মাঠে ও মাঠের বাইরে একের পর এক বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে ইতোমধ্যেই নিজেকে বাংলাদেশ ক্রিকেটের ‘ব্যাডবয়’ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন এই ড্যাশিং ব্যাটসম্যান।

সাব্বির এর আগেও কাণ্ড ঘটিয়েছিলেন রাজশাহীতে। ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে রাজশাহীতে জাতীয় ক্রিকেট লিগ (এনসিএল) চলাকালে মাঠের বাইরে এক দর্শককে লাঞ্ছিত করেন তিনি। ফলে ঘরোয়া ক্রিকেটে ছয় মাসের জন্য নিষেধাজ্ঞাসহ সাব্বিরকে নগদ ২০ লাখ টাকা জরিমানা করে ক্রিকেট বোর্ড।

এর পর আফগানিস্তানের বিপক্ষে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচ চলাকালে ড্রেসিং রুমে মেহেদী হাসান মিরাজের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় সাব্বিরের। এক পর্যায়ে মিরাজের গায়েও হাত তোলেন ২৮ বছর বয়সী এই অলরাউন্ডার! এ কারণে আফগানিস্তানের বিপক্ষে তৃতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচের একাদশ থেকে বাদ পড়েন।

এছাড়া ২০১৬ সালের বিপিএলে প্রথম বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের জন্য সাব্বির রহমান সংবাদের শিরোনাম হয়েছিলেন। চট্টগ্রামের টিম হোটেলে নিজ কক্ষে নারী অতিথি নিয়ে যাওয়ায় চুক্তির ৩০ ভাগ (১২ লাখ) টাকা জরিমানা গুনেছেন তখন।