এনটিআরসিএ‘র নিবন্ধিত শিক্ষকদের মেধা তালিকা অনুসারে শূন্যপদে নিয়োগের দাবি

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:২৩ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৪, ২০১৯ | আপডেট: ৬:২৩:অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৪, ২০১৯

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিবন্ধিত শিক্ষকদের মেধাভিত্তিক তালিকা তৈরি করে সেই অনুসারে শূন্য পদে নিয়োগ দেয়ার দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগী শিক্ষকরা। নিয়োগ বঞ্চিত শিক্ষকরা এক বিজ্ঞপ্তিতে এ দাবি জানান।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার শিক্ষকদের চাকুরিতে নিয়োগ বাণিজ্য ও দুর্নীতি এখনো অব্যাহত আছে। বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) জন্মের পূর্বে এসব প্রতিষ্ঠানসমূহের শিক্ষক নিয়োগে বাণিজ্য ও দুর্নীতি হতো সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটির রাঘব বোয়ালদের মাধ্যমে। তাদের অত্যাচারে যখন দেশের মানুষ অতিষ্ট তখন এর অবসানকল্পে সৃষ্টি হল-সরকারি প্রতিষ্ঠান ‘এনটিআরসিএ’।

এখন দেখা যাচ্ছে যে, এদের অনিয়ম দুর্নীতি পূর্বের থেকে আরো কয়েকগুণ বেশি হচ্ছে। যার ফলে তাদের বিরুদ্ধে দফায়-দফায় হাইকোর্টে মামলা দায়ের হচ্ছে। এমতাবস্থায় স্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় নিয়োগ প্রদানের জন্য হাইকোর্ট এনটিআরসিএ-কে কিছু নীতিমালা প্রদানের রুল জারি করেছেন। কিন্তু তারা তাও সঠিকভাবে মানছেনা। হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছিল- নিবন্ধিত শিক্ষকগণের একটি মেধাভিত্তিক তালিকা তৈরি করে সেই অনুসারে শূন্য পদে নিয়োগ দেয়ার জন্য।

কিন্তু দেখা যাচ্ছে যে, প্রকাশিত মেধা তালিকায়ও অস্বচ্ছতা রয়েছে। তালিকাটি যেভাবে প্রকাশ করা হয়েছে- তাতে যদি নিবন্ধিত শিক্ষকদের নামের তালিকার পাশে তারা কত নম্বর পেয়েছে তা উল্লেখ থাকতো-তা’হলে বিষয়টি আরো পরিষ্কার ও স্বচ্ছ হতো। ওই তালিকায় ৪০ হাজার নিবন্ধিত শিক্ষকের নাম উল্লেখ রয়েছে।

তাদের চাকুরি প্রদানের নিশ্চয়তা না করেই কেন-পরীক্ষার পর পরীক্ষা নিয়ে এনটিআরসিএ-একটি জটিল অবস্থার সৃষ্টি করছে তা বোধগম্য নয়। এ ছাড়া বিগত নিয়োগ প্রদানের সময় দেখা গেছে অনেক নিবন্ধি শিক্ষককে নন-এমপিও-ভুক্ত পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এরূপ নিয়োগ অর্থহীন।

Add Image

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উচিত সকল নন এমপিও পদগুলো অনতিবিলম্বে এমপিওভুক্ত করা। একটি প্রতিষ্ঠানের দু’একটি নন এমপিও পদ থাকলে ওই পদের শিক্ষকগণ মানসিক যন্ত্রনা ভোগ করেন, এটা অমাননিবক কাজ। আশা করি শিক্ষা মন্ত্রণালয় এ ব্যাপারে সু-নজর দেবেন।