এসআই আকবরকে পালাতে সহায়তা করায় এসআই হাসান বরখাস্ত

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:০৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২১, ২০২০ | আপডেট: ৬:০৬:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২১, ২০২০

সিলেটের বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে রায়হান আহমদের মৃত্যুর ঘটনায় এসআই আকবরকে পালাতে সহায়তা ও সিসি ক্যামেরার ফুটেজ (আলামত) নষ্ট করায় এসআই হাসান উদ্দিনকে বরখাস্ত করা হয়েছে। তাকে এসএমপির পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে।

বুধবার (২১ অক্টোবর) বিকাল ৫টার দিকে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের (এসএমপি) উপকমিশনার উপকমিশনার (ডিসি-উত্তর) আজবাহার আলী শেখ তাকে বরখাস্ত করেন।

এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন এসএমপির অতিরিক্ত উপকমিশনার (গণমাধ্যম) বিএম আসরাফ উল্লা তাহের।

উল্লেখ্য, গত ১১ অক্টোবর সিলেটের বন্দরবাজার ফাঁড়িতে ধরে নিয়ে টাকার জন্য অমানবিক নির্যাতন করা হয় নগরীর নেহারিপাড়া এলাকার বাসিন্দা রায়হানকে (৩৩)। ভোরে তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় রোববার দিবাগত রাতে সিলেট কোতোয়ালি থানায় অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন নিহত রায়হানের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নি।

মামলায় নিহতের স্ত্রী উল্লেখ করেন, বন্দরবাজার ফাঁড়িতে পুলিশি নির্যাতনেই রায়হানের মৃত্যু হয়েছে।

গত ১০ অক্টোবর রাতে বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনের তদন্তে গত ১১ অক্টোবর এসএমপির উপকমিশনার (ডিসি-উত্তর) আজবাহার আলী শেখের নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন করা হয়। বন্দরবাজার ফাঁড়িতেই পুলিশের নির্যাতনে রায়হানের মৃত্যুর বিষয়ে প্রাথমিক তদন্তে প্রমাণ পায় তদন্ত কমিটি।

তদন্ত কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী, নির্যাতনে সরাসরি অংশগ্রহণের জন্য বন্দর ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন কনস্টেবল তৌহিদ মিয়া, টিটু চন্দ্র দাস ও হারুনুর রশীদকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। আর রায়হানকে ধরে ফাঁড়িতে আনার জন্য বন্দরবাজার ফাঁড়ি থেকে প্রত্যাহার করা হয় এএসআই আশেক এলাহী, কুতুব আলী, কনস্টেবল সজীব হোসেনকে।

এর মধ্যে এসআই আকবর হোসেন পালিয়ে গেলেও বাকি ছয়জন পুলিশ লাইনে কড়া নিরাপত্তা হেফাজতে ছিল।