এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১:০২ পূর্বাহ্ণ, মে ৩১, ২০২০ | আপডেট: ১১:০৭:পূর্বাহ্ণ, মে ৩১, ২০২০

মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমান পরীক্ষার ফল ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রীর কাছে ফলাফলের সারসংক্ষেপ হস্তান্তর করা হয়।

এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ফল ঘোষণা করেন।

শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি এবং শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী এ সময় উপস্থিত ছিলেন। এবার যশোর বোর্ডে পাশের হার ৮৭.৩১ শতাংশ, কুমিল্লা বোর্ডে পাশের হার ৮৫.২২ শতাংশ, বরিশালে ৭৯.৭০ শতাংশ, দিনাজপুরে ৮২.৭৩ শতাংশ।

সকাল ১১টায় এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার বিস্তারিত ফলাফল ফেসবুক লাইভে তুলে ধরবেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

এরপর ১১টা থেকেই নিজেদের ফল অনলাইনে দেখতে পাবে শিক্ষার্থীরা। শনিবার বিকেলে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবুল খায়ের বাংলাদেশ জার্নালকে বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, রোববার দুপুর ১১টার পর থেকে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন মাধ্যমে ফল জানতে পারবে।

তবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষের জন্য ফল প্রকাশের পরদিন সোমবার স্কুলে ফলাফল পাঠানো হবে। বাংলাদেশ টেলিভিশন (বিটিভি) সম্পূর্ণ বক্তব্য ধারণ করবে। নিউজ ও ফুটেজ সকল ইলেক্টনিক মিডিয়ায় প্রেরণ করা হবে।

ফুটেজ ও প্রাসঙ্গিক ডকুমেন্টস ইমেইল, মেজেঞ্জার ও উইট্রান্সফারে ও প্রেরণ করা হবে। পাশাপাশি ফেইসবুকে লাইভ করা হবে। কমেন্ট অপশনে গিয়ে যে কেউ প্রশ্ন করতে পারবেন। বক্তব্য শেষে জবাব দেয়া হবে।

করোনা মহামারির কারণে স্বাস্থ্যঝুঁকি বিবেচনায় গণমাধ্যমকর্মীদের সংবাদ সম্মেলনের স্থানে না আসার জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে বিশেষভাবে অনুরোধ করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সাংবাদিকদের ই-মেইলে বিস্তারিত তথ্য পাঠানো হবে। ইলেকট্রনিক মিডিয়ার জন্য বিটিভির মাধ্যমে ভিডিও ফুটেজ পাঠানো হবে।

এসএসসি ও সমমানের ফল করোনাভাইরাসের এই প্রাদুর্ভাবের মধ্যে শিক্ষার্থীদের স্কুলে গিয়ে ফল জানার সুযোগ নেই। শিক্ষার্থীরা প্রাক- নিবন্ধন, এসএমএস এবং শিক্ষা বোর্ডগুলোর ওয়েবসাইট এই তিনটি উপায়ে ফল জানতে পারবে।

এবারের এসএসসির ফল চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহেই প্রকাশের কথা ছিলো। কিন্তু করোনার প্রাদুর্ভাবের কারণে তা সম্ভব হয়নি। তবে এবারই প্রথম পরীক্ষকদের কাছ থেকে ডাকযোগে এসএসসির ওএমআর শিট বোর্ডে এনে তা স্ক্যানিং করা হয়েছে।