ঐক্যফ্রন্টের কালো ব্যাজ ধারণ করা উচিত : কাদের

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৭:৩৬ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৬, ২০১৯ | আপডেট: ৭:৩৬:অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৬, ২০১৯
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ছবি: টিবিটি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শোচনীয় পরাজয়ের জন্য জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও বিএনপির কালো ব্যাজ ধারণ করা উচিত বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

আজ বুধবার (৬ ফেব্রুয়ারি) ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এই মন্তব্য করেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, জাতীয় নির্বাচনের পর উপজেলা নির্বাচনেও হারতে পারে, এই আশঙ্কায় নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে না বিএনপি। বিএনপি আসলে নির্বাচন ফোবিয়ায় (ভীতি) ভুগছে। নির্বাচনে হারতে হারতে তারা এখন জয়ের আশা ছেড়ে দিয়েছে। বয়কট করলে তো অন্তত বলতে পারবে যে, আমরা হারছি না। হেরে যাবে এটা অবধারিত জেনে তারা বয়কট করতে পারে।

নির্বাচনে শোচনীয় পরাজয়ের জন্য জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও বিএনপির কালো ব্যাজ ধারণ করা উচিত বলে মন্তব্য করে টিনি বলেন, পরাজয়টা এতই শোচনীয়, এত বড় একটা দল জাতীয় নির্বাচনে খুব কম কেন্দ্রেই তারা এজেন্ট দিতে পেরেছে। এজেন্ট দেওয়ার মতো ক্ষমতা তাদের ছিল না। অথচ বিএনপির অনেকে কেন্দ্র পাহারা দেওয়ার জন্য হুঁশিয়ারি দিয়েছিল। এটাই তো তাদের সাহসের দৌড়।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, চরম ব্যর্থতার জন্য কালো ব্যাজ ধারণ করলে বিএনপি ভালো থাকবে। ওখান থেকে তাদের কর্মীরা এবং জনগণও জানতে পারবে কেন তারা কালো ব্যাজ ধারণ করেছে।

বিএনপি এবং জাতীয় পার্টি উপজেলা নির্বাচনে অংশ না নেওয়ায় আওয়ামী লীগ প্রতিদ্বন্দ্বিতা উন্মুক্ত করবে কিনা, জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘উন্মুক্তই যদি করবো তাহলে এত আয়োজন করে মনোনয়ন ফরম বিতরণ কেন? মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিনের আগ পর্যন্ত আপনারা বলতে পারেন না, কে অংশ নেবে আর কে নেবে না? শেষ মুহূর্তেও অনেকে সিদ্ধান্ত বদল করতে পারে। তবে কারা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে, আর কারা নিলো না সে বিবেচনায়, জাতীয় নির্বাচনের মতো উপজেলা নির্বাচনের ট্রেনও কারও জন্য থেমে থাকবে না। উপজেলা নির্বাচনের ট্রেনও আপন গতিতে চলতে থাকবে।’

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে উপজেলা নির্বাচন সুষ্ঠু করা সংক্রান্ত সিইসি’র ঘোষণায় একমত প্রকাশ করে কাদের বলেন, ‘তার (সিইসি) সঙ্গে দ্বিমত প্রকাশের সুযোগ কোথায়? জাতীয় নির্বাচন যেভাবে হয়েছে, উপজেলা নির্বাচনও শিডিউল অনুযায়ী হবে।’

উপজেলা চেয়ারম্যান পদে নাম পাঠানো নিয়ে অভিযোগের বিষয়ে ওবায়দুল কাদেরের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, ‘কোনও অভিযোগ থাকলে মনোনয়ন বোর্ড খতিয়ে দেখে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে। এখানে কার ভাই, কার বোন, কার ছেলে সেটা বিষয় নয়। প্রশ্ন হচ্ছে, কার জনপ্রিয়তা বেশি, কে উইনেবল। তাদের আমরা মনোনয়ন দেবো।’

উপজেলা পর্যায়ে মনোনয়নের বিষয়ে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ‘কোনও উপজেলায় নিয়ম অনুযায়ী নাম আসলে, তার জনপ্রিয়তা থাকলে, দলের ভূমিকাটা আত্মীয়তার জন্য ঢাকা পড়বে— এটা ঠিক না।’