সাহেদ করিম রিকশা-ভ্যানের ভুয়া লাইসেন্সের ব্যবসাও করতেন

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯:৪৮ অপরাহ্ণ, জুলাই ১২, ২০২০ | আপডেট: ৯:৫১:অপরাহ্ণ, জুলাই ১২, ২০২০

রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদ করিম করোনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট দেওয়াসহ রিকশা ও ভ্যানের ভুয়া লাইসেন্স দেওয়ার ব্যবসাও করতেন।

শনিবার উত্তরায় প্রধান শাখায় অভিযান চালিয়ে রিকশা-ভ্যানের ভুয়া লাইসেন্স উদ্ধার করে র‍্যাব। লাইসেন্সগুলোতে ইস্যু দানকারী হিসেবে সাহেদের নাম নম্বর থাকতো।

রবিবার সন্ধ্যায় র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ গণমাধ্যমকে বলেন, করোনার ভুয়া রিপোর্ট থেকে শুরু করে রিজেন্টের মালিক সাহেদ ভুয়া রিকশা ও ভ্যানের লাইসেন্স দেওয়ার ব্যবসা করতেন। শনিবার রিজেন্টের উত্তরায় প্রধান শাখায় অভিযান চালিয়ে পাঁচশ অধিক রিকশা ও দুইশ মতো ভ্যানের ভুয়া লাইসেন্স উদ্ধার করা হয়। লাইসেন্সগুলোতে ইস্যু দানকারী হিসেবে সাহেদের নামসহ নম্বর ছিল। ভুয়া লাইসেন্স দেওয়া সেই যানবাহনগুলো তুরাগ রানাভোলা এলাকায় চলাচল করতো। প্রতি লাইসেন্স বানানোর জন্য দুই হাজার করে টাকা নিতেন ও সেই লাইসেন্সগুলো প্রতি মাসে নবায়ন করার জন্য পাঁচশত টাকা করে নিতেন।

রিকশা-ভ্যানের ভুয়া লাইসেন্সগত ৬ জুলাই (সোমবার) নানা অনিয়ম, প্রতারণা, সরকারের সঙ্গে চুক্তি ভঙ্গ ও করোনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট ও সার্টিফিকেট দেওয়া ও রোগীদের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগে রিজেন্ট গ্রুপের দু’টি হাসপাতালে অভিযান চালায় র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ অভিযানের নের্তৃত্ব দেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সারোয়ার আলম।

অভিযানে গিয়ে প্রতারণার সত্যতা মেলে, সেইসঙ্গে পাওয়া যায় গুরুত্বপূর্ণ সব তথ্য। পরদিন ৭ জুলাই (মঙ্গলবার) রিজেন্ট গ্রুপের মূল কার্যালয় এবং রাজধানীর উত্তরা ও মিরপুরে এর দু’টি হাসপাতাল সিলগালা করে দেওয়া হয়। হাসপাতালটি প্রতারণা করে ১০ হাজারেরও বেশি করোনা পরীক্ষার ভুয়া সার্টিফিকেট দিয়েছে। অভিযানের সময় রিজেন্ট হাসপাতালের পরিচালক ও ব্যবস্থাপকসহ আট জনকে আটক করেছে র‌্যাব।