কারফিউ জারি হল মক্কা ও মদিনায়

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:৪০ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২, ২০২০ | আপডেট: ১০:৪০:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২, ২০২০
General view of Kaaba at the Grand Mosque which is almost empty of worshippers, after Saudi authority suspended umrah (Islamic pilgrimage to Mecca) amid the fear of coronavirus outbreak, at Muslim holy city of Mecca, Saudi Arabia March 6, 2020. REUTERS/Ganoo Essa

করোনাভাইরাসের বিস্তাররোধে পবিত্র শহর মক্কা ও মদিনায় কারফিউ জারি করেছে সৌদি আরব। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত তা জারি থাকবে। বৃহস্পতিবার এক রাজ ডিক্রিতে এই কারফিউ জারি করা হয়। মধ্যপ্রাচ্যবিষয়ক সংবাদমাধ্যম মিডল ইস্ট আই এখবর জানিয়েছে।

সৌদি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করে খবরে বলা হয়েছে, কর্তৃপক্ষ মক্কা ও মদিনায় সর্বাত্মক কারফিউ জারি করা হয়েছে। তবে প্রাপ্ত বয়স্ক বাসিন্দারা জরুরি চিকিৎসাসেবা ও খাবার সংগ্রহের জন্য সকাল ৬টা থেকে দুপুর ৩ টা পর্যন্ত যাতায়াত করতে পারবেন।

কারফিউ জারি করে দেওয়া রাজ ডিক্রিতে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার থেকে এই কারফিউ জারি করা হলো। পরবর্তী নোটিশ না দেওয়া পর্যন্ত তা বহাল থাকবে। তবে সরকারি ও বেসরকারি যেসব প্রতিষ্ঠান জরুরি সেবায় নিয়োজিত সেগুলো এর আওতামুক্ত থাকবে।

রাজ ডিক্রিতে আরও বলা হয়েছে, এই কারফিউ জারির ফলে মক্কা ও মদিনায় যে কোনও বাণিজ্যিক কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ থাকবে। তবে ফার্মেসি, খাবারের দোকান, গ্যাস স্টেশন ও ব্যাংকিং সেবা এর আওতায় থাকবে না।

এতে বলা হয়েছে, মক্কা ও মদিনায় গাড়ি চলাচলের ক্ষেত্রে গাড়িতে একজন যাত্রী ও চালক থাকতে পারবেন।

এর আগে ২৫ মার্চ সৌদি আরব দেশটিতে লকডাউন জারি করে। লকডাউনের কারণে মক্কা, মদিনা ও রিয়াদে প্রবেশ ও বহির্গমন বন্ধ হয়ে যায়। এছাড়া দেশটির ১৩টি প্রদেশে যাতায়াতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল।

সৌদি আরবে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১ হাজার ৮৮৫ এবং এদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২১ জনের। করোনার বিস্তার ঠেকাতে দেশটি অনেক পদক্ষেপ নিয়েছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট স্থগিত, স্কুল ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা, পূর্বাঞ্চলীয় কাতিফ এলাকা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। মক্কা ও মদিনার পবিত্র মসজিদসহ সবগুলো মসজিদে নামাজ আদায় ও উমরাহ পালন স্থগিত করা হয়েছে।

বুধবার দেশটির হজ ও উমরাহ মন্ত্রী মোহাম্মদ সালেহ বেনতেন বলেছেন, ‘চলমান পরিস্থিতিতে আমরা যখন বৈশ্বিক মহামারি মোকাবিলা করছি, তখন সৌদি আরব মুসলিমসহ অন্য নাগরিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিয়ে উদ্বিগ্ন। তাই পরিস্থিতি স্পষ্ট হওয়া পর্যন্ত হজের বিষয়ে কোনও চুক্তিতে না যেতে আমরা সব দেশের মুসলিম ভাইদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।’