কারাগারে নির্যাতন করা হয়েছে, কান দিয়ে পুঁজ বের হচ্ছে : কিশোর

প্রকাশিত: ৬:২৪ অপরাহ্ণ, মার্চ ৪, ২০২১ | আপডেট: ৬:২৪:অপরাহ্ণ, মার্চ ৪, ২০২১
কারামুক্ত হলেন কিশোর। ছবি: সংগৃহীত

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে দীর্ঘ ১০ মাস কারাভোগের পর আজ বৃহস্পতিবার মুক্তি পেলেন কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোর। গতকাল বুধবার মঞ্জুর হওয়া জামিনের কাগজপত্র আজ বেলা ১১টার দিকে গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে পৌঁছালে দুপুর ১২টায় তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। কারাগার থেকে বেরিয়েই ফোনে কিশোর বললেন- বাসায় নয়, আমাকে হাসপাতালে যেতে হচ্ছে।

দেশের একটি শীর্ষ গণমাধ্যমকে ফোনে কার্টুনিস্ট কিশোর জানান, ‘মাত্র কারাগার থেকে বের হয়েছি। বড় ভাইয়ের সঙ্গে হাসপাতালে যাব। তবে, হাসপাতালে যাওয়ার আগে আইনজীবী ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়ার সঙ্গে দেখা করে, পরামর্শ করে, তারপর হাসপাতালে যাব।’

হাসপাতালে কেন, বাসায় যাবেন না? এমন প্রশ্নে কিশোর জানান, ‘আমি তো বাসায় যাওয়ার মতো অবস্থায় নেই। গ্রেপ্তারের পর আমাকে নির্যাতন করা হয়েছে। বাম পায়ে এখনো ব্যথা। ভালোমতো হাঁটতে সমস্যা হয়। দাগ রয়ে গেছে। আমার কানে আঘাত করা হয়েছে। এখনো কান থেকে পুঁজ বের হচ্ছে। শুনতে অসুবিধা হয়।’

কারাগারে চিকিৎসা পাননি? জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি জানান, ‘কী বলব! আমার অল্প ডায়াবেটিস ছিল। কারাগারে অব্যবস্থাপনার মধ্যে থেকে, চিকিৎসা না পেয়ে সুগার লেভেল অনেক বেড়ে গেছে। শরীর অনেক দুর্বল হয়ে গেছে। শারীরিক ও মানসিকভাবে খুব খারাপ অবস্থায় আছি। এখন বড় ভাইয়ের সঙ্গে হাসপাতালে যাচ্ছি।’

প্রসঙ্গত, কার্টুনিস্ট কিশোর ও লেখক মুশতাক আহমেদকে গত বছর একসঙ্গে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায়। কিছুদিন আগে কারাগারে মৃত্যুবরণ করেন মুশতাক। এ নিয়ে দেশে-বিদেশে সমালোচনার ঝড় ওঠার পর গতকাল (৩ মার্চ) জামিন দেওয়া হয় কিশোরকে।

ছয় মাসের জন্য তার জামিন মঞ্জুর করে বিচারপতি এম এনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ।

জানা যায়, ২০২০ সালের মে মাসে জনপ্রিয় কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোর এবং লেখক মুশতাক আহমেদকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ঢাকার বাসভবন থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। ফেসবুকে করোনাভাইরাস নিয়ে গুজব ও মিথ্যা তথ্য ছড়ানো এবং জাতির জনকের প্রতিকৃতি, জাতীয় সংগীত, জাতীয় পতাকাকে অবমাননার অভিযোগ আনা হয় তাদের বিরুদ্ধে।