কালো গাউনে ছেয়ে গেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

মেহেদি মুইন মেহেদি মুইন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৯:০৪ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৬, ২০১৯ | আপডেট: ৯:০৪:অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৬, ২০১৯

৫২তম সমাবর্তনকে সামনে রেখে গ্রাজুয়েটদের কালো গাউনে ছেয়ে গেছে সমগ্র ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। পাশাপাশি সমাবর্তনকে ঘিরে বর্নিল সাজে সেজেছে সমগ্র বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস।
ক্যাম্পাসে ঢুকা মাত্র চোখে পড়বে কালো গাউন পরা দশ বার জনের একটি দল, পাঁচ জনের কিংবা জোড়া কোন ছেলে-মেয়েকে। প্রথম দর্শনে আপনার মনে হতে পারে আপনি হয়তোবা কোন আদালত চত্বরে ভুলে ঢুকে পড়েছেন কিন্তু না আপনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েই আছেন আর কালো গাউন ধারি ছেলে বা মেয়রা হলো সদ্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক সম্মান শেষ করা শিক্ষার্থী।

সমাবর্তনকে ঘিরে সবার মাঝে রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া অনেকেই খুশি দীর্ঘ চার বছরের লম্বা সময় পাড়ি দিয়ে সম্মপন্ন হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মান জীবন আবার অনেকের চোখের কোনেই দেখা যাচ্ছে অশ্রæকণা। কারণ আরতো অল্প কয়েক দিন পরই ইতি টানতে হবে বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের । দীর্ঘ সময় ধরে যে সকল সহপাঠীদের সঙ্গে ভাগাভাগি করেছেন জীবনের হাসি-কান্না, সুখ-দুঃখের সময়গুলো সবই থাকবে স্মৃতির পাতায় থাকবে না শুধু তারা। তাই শেষ সময়গুলোকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য চলছে নানা আয়োজন কেউবা করছেন নিজেদের ক্যামেরা বন্দি, দলগতভাবে ঘুরে আসছেন দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্যপ্রান্তে আবার তাকছে বুফে খাওয়া দাওয়ার আয়োজন।

সদ্য অনার্স সমাপ্ত হওয়া ইসলামের ইতহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষার্থী সাজ্জাদুল কবির বলেন, আসলে উচ্চ শিক্ষা গ্রহন করার উদ্দ্যেশেই আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ে আসি আর বিশ্ববিদ্যালয় জীবন সমাপ্ত করাও একটি সৌভাগ্যের বিষয়। উন্নত বিশ্বের দেশগুলোতে শিক্ষার্থীরা তাদের পিতামাতাকে সাথে নিয়ে সমাবর্তনে অংশগ্রহণ করে ফলে এটার আনন্দ অনেকাংশে বেড়ে যায় কিন্তু আমরা জায়গা স্বল্পতা বা নিরাপত্তার অভাবে এটা করতে পারি না যা দুঃখজনক।

একই বিভাগের আরেক শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ আল জোবায়ের বলেন, সমাবর্তন হলো বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের পরবর্তী জীবনের জন্য প্রস্তুতিরই একটি অংশ। বিশ্ববিদ্যায় জীবন থেকে আমরা যা কিছু অর্জন করি তা বাস্তব জীবনে প্রয়োগ ও দেশের কল্যাণের জন্য কিছু করার সুযোগ তৈরী করে দেয় এই সমাবর্তন।

এবারের সমাবর্তন সভায় জাপানের টোকিও বিশ্ববিদ্যালয় ইনস্টিটিউট ফর কসমিক রে রিসার্চ-এর পরিচালক এবং নোবেল বিজয়ী পদার্থবিজ্ঞানী অধ্যাপক ড. তাকাকি কাজিতাকে সমাবর্তন বক্তা হিসেবে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। সমাবর্তন অনুষ্ঠানে তাকে সম্মানসূচক ‘ডক্টর অব লজ’ ডিগ্রি প্রদান কর হবে ।