কিশোরগঞ্জে বিদ্যালয় মাঠে সড়কের উপকরন দুর্ভোগে শিক্ষার্থীরা

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:৫৫ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৭, ২০১৮ | আপডেট: ৬:৫৫:অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৭, ২০১৮

মাফি মহিউদ্দিন, কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী) প্রতিনিধি: নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলায় বিদ্যালয় চলাকালিন সময়ে বিদ্যালয় মাঠে একটি সড়কের নির্মাণ কাজের সামগ্রী রেখে এবং মিক্য্রচার প্লান মেশিন বসিয়ে চলছে সড়ক পাকাকরনের উপকরন তৈরির কাজ। ফলে ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন।

এদিকে এলাকাবাসী ও ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অভিভাবকগন বিদ্যালয় মাঠ থেকে নির্মান সামগ্রীসহ মিক্য্রচার মেশিন সরানোর দাবি জানিয়ে কাজ আটকে দিলে ঠিকাদারী প্রতিষ্টানের ম্যানেজার আব্দুল মজিদ বাদি হয়ে কিশোরগঞ্জ থানায় ৬ জনকে আসামী করে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

শনিবার অভিযোগ ও সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, কিশোরগঞ্জ উপজেলা এলজিইডির অর্থায়নে প্রায় এককোটি ১০ লাখ টাকা ব্যায়ে গাড়াগ্রাম ডিসির মোড় থেকে কৈমারী যাওয়ার সড়কের শালমারা ব্রিজ হতে রণচন্ডি ইউনিয়নের বদি কবিরাজের বাজার পর্যন্ত দুই কিলোমিটার সড়কের পাকা করণের কাজ চলছে।

সড়কের পাশ্বে একই মাঠে পুর্ব দিকে বদি দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয় ও পশ্চিম দিকে উত্তর কিসামত সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। কাজটির ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মালিক শাহ আনোয়ার হোসেন বদি দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অনন্ত কুমারকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ম্যানেজ করে বিদ্যালয় মাঠটিতে গত এক মাস যাবৎ সড়ক পাকা করনের কাজে ব্যবহত পরিত্যাক্ত পুরাতন টায়ার , স্যান্ডেল, বিটুমিন, আলকাতরা ও ধুলোমিশ্রিত পাথর এবং একটি মিক্য্রচার মেশিন বসিয়ে সড়কের উপকরন তৈরির কাজ করছে ।

Add Image

ফলে শিক্ষার্থীদের ক্লাস করা সহ যাতায়াতে চরম দুর্ভোগের স্বীকার হচ্ছে। নাম প্রকাশ না করার বদি দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের একজন সহকারী শিক্ষক বলেন, প্রধান শিক্ষক মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে বিদ্যালয়টির মাঠটি ঠিকাদারকে ভাড়া দিয়েছে। বিদ্যালয় মাঠে এসব সামগ্রী রাখার কারনে বিদ্যালয়ের লেখাপড়া বন্ধসহ বিদ্যালয়টি একেবারে বন্ধ হওয়ার উপক্রম।

বদি দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অনন্ত কুমার সাংবাদিক আসার খবর শুনে অফিস তালাবদ্ধ করে সটকে পড়েন। পড়ে তাঁর ব্যবহত মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল দিলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। উত্তর কিসামত সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অনিল কুমার রায় বলেন, আগামীকাল রবিবার থেকে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনি পরীক্ষা । আমার বিদ্যালয়কে ভেন্যু সেন্টার করা হয়েছে । এখানে মোট ১২ টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ৩ টি এবতেদায়ী মাদ্রাসার ছাত্রছাত্রীরা পরীক্ষায় অংশ নেবে কিন্তু বিদ্যালয় মাঠে সড়কের নির্মান সামগ্রী রাখার কারনে পরীক্ষা নেওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।

ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মালিক শাহ আনোয়ার হোসেন বলেন, সরকারী কাজে বাঁধা দেওয়ার জন্য থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। বিদ্যালয় মাঠে নির্মাণ সামগ্রী রেখে কাজ করার বিষয়ে তিনি বলেন বদি দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অনন্ত কুমারের অনুমতি সাপেক্ষে বিদ্যালয় মাঠে মালামাল ফেলা হয়েছে।কিশোরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ হারুন অর রশিদ অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করেছেন।