কেরালার বন্যার জন্য দায়ী তামিলনাড়ু

প্রকাশিত: ৭:৩২ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ২৪, ২০১৮ | আপডেট: ৭:৩২:পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ২৪, ২০১৮

ভারতের কেরালা রাজ্যের বাসিন্দারা সম্প্রতি যে ভয়াবহ বন্যা মোকাবেলা করেছে তার জন্য দায়ী নাকি তামিলনাড়ু। ওই রাজ্যের মুল্লাপেরিয়ার বাঁধ থেকে জল ছাড়ার ফলেই বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। সুপ্রিম কোর্টে এ দাবি করেছে কেরালার রাজ্য সরকার।

বৃহস্পতিবার কেরালা পক্ষ থেকে সুপ্রিম কোর্টকে জানানো হয়, তাদের রাজ্যে বন্যা পরিস্থিতির জন্য তামিলনাড়ুর মুল্লাপেরিয়ার বাঁধ অন্যতম কারণ। সেখান থেকে হঠাৎ জল ছাড়ায় কারণেই কেরালায় বন্যা হয়েছে।

কেরালার অভিযোগ, জলসীমা যখন ১৩৬ ফুট ছিল তখনই বাঁধ থেকে জল ছাড়ার কথা বলা হয়েছিল। কিন্তু তামিলনাড়ু সেই কথা কানে তোলেনি। বর্ষার কারণে ওই রাজ্যের জলস্তর ক্রমশঃ বাড়তে থাকে। তার উপর জারি হয় সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশিকা। ফলে ১৬ আগস্টের পর তামিলনাড়ু জল ছাড়ে। এ সময় কেরালায় বন্যা শুরু হয়ে গিয়েছে। জল ছাড়ার পর বন্যা পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হয়।

গত সপ্তাহে তামিলনাড়ু সরকারকে বাঁধের জলস্তর ৩ ফিট কমানোর নির্দেশ দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। সেই অনুসারেই বাঁধের জলস্তর রাখা হয়েছে। ১৪২ ফিট এফআরএল থেকে ২-৩ মিটার কম রাখা হয়েছে জলস্তর।

বৃহস্পতিবার তামিলনাড়ুর মুল্লাপেরিয়ার বাঁধের জলস্তর পরীক্ষা করে একটি সাব কমিটি। জলসম্পদ মন্ত্রীর পক্ষ থেকে জানানো হয়, ৩১ আগস্ট পর্যন্ত জলস্তর ১৪২ ফিট এফআরএল মার্কের ২-৩ ফিট নিচে রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। তা তারা রেখেছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হয়। জলসম্পদ মন্ত্রণালয়ের এক সিনিয়র অফিসার একথা জানান। কমিটির অফিসারদের নিয়োগ করে কেন্দ্র। কেরালা ও তামিলনাড়ুর জলসম্পদ মন্ত্রকের মধ্যে থেকে অফিসারদের নিয়োগ করা হয়েছিল। তাঁরা জলস্তর পরীক্ষা করে দেখেন।

এদিকে কেরালায় আপাতত কমেছে বৃষ্টি৷ আবহাওয়া দপ্তরের পূর্বাভাস অনুযায়ী, আগামী কয়েকদিন কেরলের বিভিন্ন জেলায় ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই।
কোঝিকোড়, আলেপ্পুঝার চেঙ্গানুর, ত্রিশূরের অবস্থার সেভাবে উন্নতি হয়নি। বহু জায়গা থেকে ধীরে ধীরে বন্যার পানি সরছে। ধ্বংসের চিহ্ন নিয়েই ধীরে ধীরে স্বাভাবিক ছন্দে ফিরছে দক্ষিণের রাজ্য।