কোয়ারেন্টিন সেন্টার থেকে পালিয়েছেন বিদেশফেরত ৪ করোনা রোগী

প্রকাশিত: ৬:২৩ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৯, ২০২১ | আপডেট: ৬:২৩:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৯, ২০২১

পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়ার অস্থায়ী প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন সেন্টার থেকে চার জন করোনা পজিটিভ রোগী পালিয়েছেন। ভারত থেকে আসা ১২ জন করোনা রোগী এখানে অবস্থান করছিলেন।

রবিবার (১৮ এপ্রিল) রাতে চার জন করোনা রোগী পালিয়ে যান। তেঁতুলিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহাগ চন্দ্র সাহা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

পালিয়ে যাওয়া রোগীদের বাড়ি পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁওসহ বিভিন্ন জেলায়। ভারত থেকে আসা ১২ জন করোনা রোগী অবস্থান করছিলেন কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে।

জানা গেছে, রবিবার বিকালে বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরের ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে ভারত থেকে ১২ জন বাংলাদেশি নারী-পুরুষ দেশে ফেরেন। কাস্টমস-ইমিগ্রেশনের আনুষ্ঠানিকতা শেষে তাদের তেঁতুলিয়া উপজেলার কাজী শাহাবুদ্দিন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় অ্যান্ড কলেজের অস্থায়ী প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে রাখা হয়। করোনা আক্রান্তদের নিজ খরচে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে অবস্থান বাধ্যতামূলক করা হয়। সেখান থেকে রাতেই চারজন পালিয়ে গেছেন। বর্তমানে আটজন অবস্থান করছেন।

পঞ্চগড়ের সিভিল সার্জন ডা. ফজলুর রহমান জানান, মহামারি করোনাভাইরাসের ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণ ঠেকাতে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলার বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে আগমনকারী দেশি-বিদেশি নাগরিকদের নিজ খরচে এখানে ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রাখার সিদ্ধান্ত নেয় জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটি। এজন্য একটি মেডিকেল টিম সার্বক্ষণিক প্রস্তুত রাখা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ১০টি কক্ষে ৫০ শয্যার ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রয়োজনে ১৫০ শয্যায় উন্নীত করা হবে।

তেঁতুলিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহাগ চন্দ্র সাহা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, পালিয়ে যাওয়া ওই চারজনের ঠিকানায় খোঁজ করে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করতে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।