‘ক্যাসিনো দুর্নীতিবাজ যুবলীগ নেতারা এখন এক একটি ব্যাংক’

ডা. শাহাদাত হোসেন

সোহেল মাহমুদ সোহেল মাহমুদ

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৬:২০ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৯ | আপডেট: ৬:২০:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৯
ছবি: টিবিটি

সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে তৃণমূল পর্যন্ত নেতাকর্মীরা দুর্নীতিতে ডুবে গেছে। ক্যাসিনো দুর্নীতিবাজ যুবলীগ নেতারা এখন এক একটি ব্যাংকে পরিণত হয়েছে। যেখানে ৪শ কোটি টাকা দিয়ে একটি ব্যাংক করা যায় সেখানে যুবলীগ নেতার ক্যাসিনোতে পাওয়া যাচ্ছে ৭শ কোটি টাকা।

সবখানে যে ভয়াবহ আকারে দুর্নীতি হচ্ছে এটা দেশে ভয়ংকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে। সরকার বাংলাদেশের অর্থনৈতিক কাঠামোকে ধ্বংস করে দিয়েছে। ক্যাসিনো বিএনপির আমলে সৃষ্ট এমন বক্তব্য দিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক অবৈধ ক্যাসিনো দুনীর্তিকে প্রতিষ্ঠিত করতে চাচ্ছে।

আজ ২২ সেপ্টেম্বর রবিবার দুপুরে নাসিমন ভবনস্থ দলীয় কার্যালয়ের সামনে নূর আহমদ সড়কে চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা দলের উদ্যোগে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবীতে আয়োজিত মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপির মহানগর সভাপতি ডাঃ শাহাদাত হোসেন এসব কথা বলেন।

মানববন্ধনে ডা. শাহাদাত আরো বলেন- শহীদ জিয়া বিএনপির আমলে বাকশাল থেকে আওয়ামীলীগকে পুন:জন্ম দিয়ে রাজনীতি করার সুযোগ দিয়েছিল। বাংলাদেশকে মসজিদের নগরী থেকে আওয়ামীলীগ ক্যাসিনোর নগরীতে পরিণত করেছে। রোহিঙ্গাদের পাসপোর্ট বিএনপি দিয়েছে আওয়ামীলীগের এক মন্ত্রীর এমন বক্তব্যে প্রমাণিত হয় তারা সরকার পরিচালনায় তার সম্পূণ ব্যর্থ। তাই দুর্নীতি ও ব্যর্থতার দায় নিয়ে তাদের পদত্যাগ করা উচিত।

তিনি অবিলম্বে কারাবান্দি বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে দেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে সারাদেশের নেতাকর্মীদের আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়ার আহবান জানান। মানববন্ধনে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর বলেন, জনগণের অধিকার হরণ করে বিনা ভোটে রাষ্ট্রিয় ক্ষমতা দখল করে আওয়ামী লীগ কি পরিমাণ লুটপাট করেছে তার নজীর সম্প্রতি সময়ে বেরিয়ে এসেছে ক্যাসিনো কেলেঙ্কারীর মধ্য দিয়ে।

যুবলীগ নেতাদের ক্যাসিনো আস্তানায় অভিযানের পর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে যুবলীগ সভাপতির হুমকি প্রমাণ করে প্রশাসন আওয়ামী যুবলীগের কথাতেই চলে। তাই বর্তমান সরকার ক্ষমতায় থাকার নৈতিকতা হারিয়েছে। তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে দীর্ঘদিন ধরে অন্যায়ভাবে কারাগারে বন্দি করে রেখেছে সরকার।

দেশবাসী আশা করেছিল বেগম খালেদা জিয়া জামিনে মুক্তি পাবেন। কিন্তু সরকারের হস্তক্ষেপে আদালত স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছে না। সরকার বিচারব্যবস্থাকে সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ করে রেখেছে। তাই বেগম খালেদা জিয়া ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

চট্টগ্রাম মহানগর মহিলাদলের সভাপতি কাউন্সিলর মনোয়ারা বেগম মনির সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক জেলী চৌধুরীর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সহসভাপতি মোহাম্মদ মিয়া ভোলা, উপদেষ্টা জাহিদুল করিম কচি, সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ইসলাম, সহদপ্তর সম্পাদক মো. ইদ্রিস আলী, বাকলিয়া থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আফতাবুর রহমান শাহীন, জসিম উদ্দিন চৌধুরী, জমির উদ্দিন নাহিদ, মহিলা দলের সহসভাপতি খালেদা বোরহান, সাহেদা বেগম, মারিয়া সেলিম, রেনুকা বেগম, যুগ্ম সম্পাদক রেজিয়া সুলতানা মুন্নি, রেজিয়া বেগম ভুলু, সাংগঠনিক সম্পাদক
গোলজার বেগম, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুন্নেসা, তাসলিমা বেগম, বিএনপি নেতা মনজুর কাদের, দিদারুল ইসলাম, মো. শাহ আলম, নগর মহিলা দল নেত্রী সায়মা হক, জিনাত রজ্জাক জিনিয়া, ইসমত আরা জেরিন, জোহরা বেগম, জুলেখা বেগম জুলি, খায়রুন্নেসা বেগম, মনোয়ারা বেগম, পারভীন আকতার, সামসুন্নাহার, জাহেদা সুলতানা, ফারহানা আকতার রোজা, মনোয়ারা বেগম মনি, নাসিমা আকতার, আইরিন সুলতানা, হাসিনা বেগম প্রমুখ।