কয়েন থেকে ছড়াতে পারে করোনা

প্রকাশিত: ৫:৪১ অপরাহ্ণ, জুন ২৫, ২০২০ | আপডেট: ৫:৪১:অপরাহ্ণ, জুন ২৫, ২০২০

পয়সা ছাড়া জীবন অচল। আর মহা মূল্যবান এই বিনিময় সামগ্রীর গায়ে মেখে করোনা হানা দিচ্ছে না তো? মারণ ভাইরাসের প্রকোপ পড়া ইস্তক এমন প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সাধারণ মানুষের মনে। আর আনলক পর্যায়ে তা আরও প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠেছে। কারণ জীবন সচল হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণ।

বিশেষত খুচরা পয়সা। কারণ কাগজে ভাইরাস ততটা গেড়ে বসতে না পারলেও ধাতব বস্তু বা মেটাল সারফেসে তার দীর্ঘস্থায়ী অস্তিত্বের কথা একরকম প্রমাণিত। ফলে নোট আদান প্রদানের ক্ষেত্রে তেমন ভীতি না থাকলেও খুচরা পয়সা কতটা বিপদজনক?

নর্থ ক্যারোলিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের মহামারী বিশেষজ্ঞ রাচেল গ্রাহাম জানান, কাগজের উপর করোনাভাইরাস বেশিক্ষণ টিকে থাকতে না পারলেও ধাতব বস্তুর উপর ভাইরাসের দীর্ঘস্থায়ী অস্তিত্বের প্রমাণ মিলেছে। ফলে কাগজের নোটে আদান প্রদানের ক্ষেত্রে করোনা সংক্রমণের তেমন ঝুঁকি না থাকলেও ধাতব খুচরা পয়সায় বিপদ কিন্তু রয়েই যায়।

তাহলে কী খুচরা পয়সায় লেনদেন বন্ধ করে দিতে হবে? একেবারেই নয়। এগুলিকে সহজেই জীবানুমুক্ত করা যায়। তাছাড়া, খুচরা পয়সায় লেনদেনের পর পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে বাড়তি সতর্ক হলেই করোনা সংক্রমণের ভয় সহজেই এড়ানো সম্ভব।

এ ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ হল, খুচরা পয়সায় লেনদেনের পর বাড়িতে ফিরেই আগে দুই হাত ভাল করে সাবান দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে। কয়েনগুলিকে যেখানে রাখেন, সেটিকে বা খুচরা পয়সায়গুলিকেও সহজেই স্যানিটাইজ করে নেওয়া যেতে পারে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ডেলাওয়্যার বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক জেনিফার হর্নি জানান, শুধু খুচরা পয়সা থেকেই নয়, ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ড থেকেও ছড়াতে পারে ভাইরাস। তবে উপযুক্ত সতর্কতায়, যথাযথ পরিচ্ছন্নতায় অনায়াসেই করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি এড়ানো সম্ভব। তাই অযথা আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।

সূত্র: জি নিউজ।