খসরু ভাই ছিলেন পরিচ্ছন্ন মানসিকতার স্বজ্জন ব্যক্তিত্ব: আসিফ

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:১৪ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৫, ২০২১ | আপডেট: ১২:১৪:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৫, ২০২১

সম্প্রতি করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি, সাবেক আইনমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আবদুল মতিন খসরু এমপি।

এদিকে বুধবার বিকাল ৪টা ৫০ মিনিটে ৭১ বছর বয়সী এ রাজনীতিকের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী আসিফ আকবর। ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়ে আবদুল মতিন খসরুকে তিনি পরিচ্ছন্ন মানসিকতার একজন স্বজ্জন ব্যক্তিত্ব হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

গায়ক আসিফ তার স্ট্যাটাসে লেখেন, ‘কুমিল্লায় আমরা প্রতিবেশী। ছোটবেলা থেকেই আবদুল মতিন খসরু ভাইকে দেখেছি। তিনি ছিলেন পরিচ্ছন্ন মানসিকতার একজন স্বজ্জন প্রিয় ব্যক্তিত্ব।

ক্লেদাক্ত রাজনীতির মাঠের ব্যতিক্রমী এক মহীরুহ ছিলেন তিনি। কুমিল্লার কৃতি সন্তান অ্যাডভোকেট আবদুল মতিন খসরু সাহেবের মৃত্যুতে আমরা কুমিল্লাবাসী হারালাম একজন ভালো নেতা, একজন ভালো মানুষ এবং একজন সুপ্রতিবেশী। বিনম্র শ্রদ্ধা। খসরু ভাইয়ের আত্মার শান্তি কামনা করি। মহান আল্লাহ উনার পরিবারকে এই শোক সইবার শক্তি দিন।’

প্রসঙ্গত, গত ১৫ মার্চ সংসদ সচিবালয়ে করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা দেন আবদুল মতিন খসরু। ১৬ মার্চ তার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। ওইদিনই তাকে সিএমএইচে ভর্তি করা হয়। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় ২৮ মার্চ রাতে আবদুল মতিন খসরুকে আইসিইউতে নেওয়া হয়।

১ এপ্রিল করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। ৩ এপ্রিল তাকে আইসিইউ থেকে সাধারণ কেবিনে নেওয়া হয়। এরপর শারীরিক অবস্থা খারাপ হলে সাবেক সাবেক এই আইনমন্ত্রীকে মঙ্গলবার লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়। বুধবার বিকালে তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে আবদুল মতিন খসরুর নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। সেখানে তার মরদেহে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হবে। এরপর বাদ আসর কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়ায় পারিবারিক কবরস্থানে তাকে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হবে।

আবদুল মতিন খসরু ১৯৫০ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের কুমিল্লা ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার মিরপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি কুমিল্লা-৫ আসন থেকে পাঁচবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

১৯৯৬ থেকে ২০০১ মেয়াদে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকাকালে তিনি আইনমন্ত্রী ছিলেন। পাশাপাশি তিনি গত ১৩ মার্চ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি নির্বাচিত হন।