খুবিতে আইটি-আইটিইএস জব ফেয়ারে উপচে পড়া ভীড়

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:২৩ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৩০, ২০১৯ | আপডেট: ৮:২৩:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৩০, ২০১৯

খুলনা থেকে তিতাস চক্রবর্তী: খানজাহান আলী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএসসি শেষ করেছেন খুলনার জিড়ো পয়েন্ট এলাকার মিষ্টি মেয়ে বৃষ্টি। একটি চাকরী তার খুবই প্রয়োজন। চাকরী পেলে তার বাবার ইচ্ছা পূরণ হয়।

গতকাল বুধবার খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে ‘খুলনা আইটি-আইটিইএস জবফেয়ারে’ চাকরীর সাক্ষাতকার দিতে এসে বৃষ্টি তার অভিব্যাক্তি প্রকাশ করে বলেন, বাবা কষ্ট করে আমাকে এতদুর নিয়ে এসেছেন, এখন বাবা-মায়ের কষ্ট পূরণের পালা।

পাইকগাছা উপজেলার কপিলমুনি থেকে এসেছেন এম খায়রুল ইসলাম। খুলনার বিএল কলেজ থেকে বাংলায় অনার্স করেছেন। তিনি বলেন চাকুরীটা পেলে পরিবারের উপর চাপ কমবে। চাকরীর আয় দিয়েই পড়ালেখা শেষ করতে পারবো। এছাড়া সাতক্ষীরার তালার সুমন দেবনাথ, যশোর অভয়নগর প্রেমবাগ এলাকার দিপংকর বিশ্বাস, আলিসা আক্তারসহ শতাধিক তরুন-তরুণীদের সাথে কথা বলে জানাযায় তারা ভালো জব করে বাবা-মায়ের স্বপ্ন পূরন করতে চান।

আয়োজকরা জানান, এ চাকরী মেলায় শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক, যশোরের ১১টি প্রতিষ্ঠানসহ দেশের শীর্ষস্থানীয় ৪২ টি আইটি কোম্পানির প্রতিনিধিগণ উপস্থিত থেকে চাকরিপ্রার্থী আগ্রহী তরুণ-তরুণীদের সাক্ষাতকার নেন। এ মেলায় প্রাথমিকভাবে ২৫০ জনকে নির্বাচিত করা হবে। চাকরি মেলায় যোগ দেওয়ার জন্য গত ১০ হাজার স্নাতক অনলাইনে নিবন্ধন করেন। খুব ভোর থেকে দুর-দুরান্ত থেকে চাকুরী প্রত্যাশীরা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে জড়ো হতে থাকে।

এ মেলার আকর্ষন ছিল ডব্লিউ-থ্রি ইঞ্জিনিয়ার্স এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আয়েশা সিদ্দিকার ক্যারিয়ার ইন আইসিটি আউটসাইট ঢাকা শীর্ষক সেমিনার এবং কাজী আইটি’র সিইও মাইক কাজীর সঞ্চালনায় কাজী আই রিক্রুইটমেন্ট আওয়ার নামে দুটি বিশেষ সেশন।

এ মেলার আয়োজক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের আওতায় লিভারেজিং আইসিটি ফর গ্রোথ, এমপ্লোয়মেন্ট অ্যান্ড গভর্নেন্স প্রজেক্ট (এলআইসিটি) এবং সহযোগিতায় রয়েছে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফর্মেশন সার্ভিসেস (বেসিস) এবং বাংলাদেশ অ্যাসেসিয়েশন অব কল সেন্টার অ্যান্ড আউটসোর্সিং (বাক্য)।

সকালে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অদম্য বাংলার সামনে দিনব্যাপী ‘খুলনা আইটি-আইটিইএস জবফেয়ার-২০১৯’ ফিতা কেটে ও বেলুন উড়িয়ে উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান। তিনি মেলার সাফল্য কামনা করেন। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রবিষয়ক পরিচালক প্রফেসর মোঃ শরীফ হাসান লিমন মেলার বিশ্ববিদ্যালয়ের সমন্বয়কারী সহযোগী অধ্যাপক মোঃ এনামুল হক এবং আয়োজকদের পক্ষে এলআইসিটি প্রকল্প পরিচালক রেজাউল করিম, এনডিসি, প্রকল্প এল আইসিটি প্রকল্পের কম্পোনেন্ট টিম লিডার সামি আহমেদ, অগমেডিক্স বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর রাশেদ মুজিব নোমান এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় জব ফেয়ার মেলায় উপস্থিত ছিলেন এলআইসিটি প্রকল্প পরিচালক রেজাউল করিম, এনডিসি, প্রকল্প এল আইসিটি প্রকল্পের কম্পোনেন্ট টিম লিডার সামি আহমেদ, অগমেডিক্স বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর রাশেদ মুজিব নোমান এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিগণ। সঞ্চালনা করেন হাসান বেনাউল ইসলাম।

উদ্বোধনের পর পরই তথ্যপ্রযুক্তি খাতে ক্যারিয়ার গড়তে আগ্রহী চাকরি প্রত্যাশী তরুণ-তরুণীদের ভিড় শুরু হয়।

শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক, যশোরের বর্ণ আইটি’র সিইও উজ্জল বিশ্বাস বলেন, তার প্রতিষ্ঠানটি গ্রাফিকস ডিজাইনার, ডিজিটাল মার্কেটিং ও ওয়েভ ডেভোলপারের উপর পরীক্ষা নেওয়া হয়। মেলার উপস্থিতি দেখে তিনি সন্তোষ প্রকাশ করেন।

এক্সপ্রেশান সোশ্যাল কোম্পানীর সিনিয়র ম্যানেজার নাহিদ ইসলাম তুষার মেলার উপস্থিতি খুবই সন্তোষজনক উল্লেখ করে বলেন, ভাবতে পারিনী এত আবেদন পড়বে। গতকাল মেলায় ২ হাজারের উপরে রেজিষ্ট্রেশন হয়েছে। এ নিয়ে গত দশ দিনে দশ হাজার স্নাতক নিবন্ধন করেছেন। এই মেলায় ২৫০ জনকে চাকরী প্রদান করা হবে বলে তিনি জানান। #