গত দশ বছরে ইলিশের উৎপাদন প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে: সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:২২ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১৯ | আপডেট: ৮:২২:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১৯

ফয়সল হাসান: সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এমপি বলেছেন, ইলিশ সংরক্ষণ ও উৎপাদন বৃদ্ধিতে বর্তমান সরকার কর্তৃক বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ ও বাস্তবায়নের ফলে বিগত দশ বছরে দেশে ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়ে প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে।

২০০৭-০৮ অর্থবছরে দেশে ইলিশের উৎপাদন যেখানে ছিল ২.৯০ লক্ষ মেট্রিক টন, সেখানে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়ে ৫.১৭ লক্ষ মেট্রিক টনে দাঁড়িয়েছে যা বর্তমান সরকারের একটি অন্যতম সাফল্য। চলতি মৌসুমে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়ায় সাধারণ মানুষ এখন ইলিশ কিনে খেতে পারছেন।

প্রতিমন্ত্রী আজ বিকালে রাজধানীর হোটেল পূর্বাণী ইন্টারন্যাশনালে পদক্ষেপ বাংলাদেশ কর্তৃক আয়োজিত ছয় দিনব্যাপী “আন্তর্জাতিক ইলিশ, পর্যটন ও উন্নয়ন উৎসব ২০১৯”এর চতুর্থ দিনের সাংস্কৃতিক পর্বের অংশ হিসেবে আলোচনাসভা ও সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

প্রধান অতিথি বলেন, নববর্ষ তথা বাঙালি সংস্কৃতির সঙ্গে ইলিশের সম্পর্ক অবিচ্ছেদ্য। ইলিশ জড়িয়ে আছে বাঙালির যাপিত জীবনে, কল্পনায় ও উদযাপনে। তিনি বলেন, বাঙালির হাজার বছরের ইতিহাসে কখনো আর্য, কখনো সেন, কখনো তুর্কি, কখনো আফগান, কখনো মোগল কিংবা সর্বশেষ ইংরেজ শাসন করেছে। কিন্তু বাঙালির ভাত খাওয়ার অভ্যাসে পরিবর্তন হয়নি। আর মাছ তো বাঙালির নিকট অমৃত, বাঙালির জ্ন্ম-বিয়ে-মৃত্যু পর্যন্ত সব জায়গায় কমবেশি মাছের উপস্থিতি লক্ষণীয়। সেই সুবাদে জুটেছে ‘মাছে-ভাতে বাঙালি’ উপাধি।

কবি ও সাংবাদিক নাসির আহমেদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন সাবেক সংসদ সদস্য কবি কাজী রোজী, আইটিআই বাংলাদেশ কেন্দ্রের সভাপতি বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব নাসির উদ্দিন ইউসুফ ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ শিশু একাডেমির পরিচালক আনজীর লিটন, কবি মাসুদুল আলম বাবুল, কবি বিমল গুহ প্রমুখ৷

“বাঙালি সংস্কৃতি ও মুজিববর্ষের ভাবনা” শীর্ষক সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন পদক্ষেপ বাংলাদেশ এর সাধারণ সম্পাদক জান্নাতুন নিসা।

লেখক: সিনিয়র তথ্য অফিসার, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়।