গরমে সজনে ডাটা কেন খাবেন! জেনে নিন এর উপকারিতা

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:২১ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ৮, ২০১৯ | আপডেট: ১২:২৩:পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ৮, ২০১৯
ছবিঃ সংগৃহিত

সজনে ডাটা পুষ্টি গুনে অতুলনীয়। গরমের এই সবজি টিকে আমরা অনায়াসে খাবার টেবিলে বেছে নিতে পারি। কেন আমরা সজনে ডাটা খাব তা নিয়ে আমাদের এই আলোচনা-

ঠাণ্ডা জর এবং কাশি উপশম করে-

সজনে ডাটায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি থাকে যা এন্টি অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে। তাই ঠাণ্ডা জর এবং কাশি দূর করতে সাজনার তরকারি, ডাল বা সুপ করে খান।

উচ্চ রক্ত চাপ নিয়ন্ত্রণ করে-

সজনে ডাটা দেহের কোলেস্টোরল নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। তাই সজনে ডাঁটা খাওয়া উচ্চ রক্ত চাপের রোগীদের জন্য বেশ উপকারী। এছাড়া উচ্চ রক্ত চাপের চিকিৎসায় সজনের পাতাও বেশ উপকারী।

পেটের সমস্যা সমাধানে –

সজনে হজম সমস্যা সমাধানে ব্যাপকভাবে কার্যকরী। পেটে গ্যাস হলে, বদহজম হলে এবং পেটে ব্যথা হলে সজনের তৈরি তরকারী খেয়ে নিন। দেখবেন পেটের গোলমাল অনেক উপশম হয়ে যাবে।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে-

মানুষের শরীরে চিনির সঠিক মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রেখে ডায়াবেটিসের বিরুদ্ধে লড়তে সাহায্য করে সজিনা। তাই ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য সজনে খুবই উপকারী সবজি।

হাড় শক্ত ও মজবুত করে-

সজনে ডাটায় প্রচুর পরিমাণে আয়রণ, ক্যালসিয়াম এবং ভিটামিন থাকে। তাই এটি সুস্থ এবং শক্তিশালী হাড়ের জন্য অত্যন্ত উপকারী এছাড়াও আমাদের শরীরের রক্ত বিশুদ্ধ করতেও সজনের কোন জুড়ি নেই।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়-

সজনে ডাটায় থাকা ভিটামিন সি এন্টি অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে। এই এন্টি অক্সিডেন্ট রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং শরীরকে শক্তিশালী করে তোলে।

বসন্ত রোগ প্রতিরোধ করে-

বসন্ত প্রতিরোধে সজনে ডাটা তরকারি বা ডাল রান্না করে খেলে জল বসন্ত ও গুটি বসন্তে আক্রান্ত হওয়ার আশংকা অনেকাংশে কমে যায়।

মুখে রুচি বাড়ে-

সজনে ডাঁটার মতো এর পাতারও রয়েছে যথেষ্ট গুণ। সজনে পাতা শাক হিসেবে, ভর্তা করেও খাওয়া যায়। এতে মুখের রুচি আসে।

শ্বাসকষ্ট কমায়-

সজনে ডাটা এবং পাতার রস খেলে শ্বাসকষ্ট সারে। সজনে ডাটায় থাকা প্রদাহ-বিরোধী এন্টি অক্সিডেন্ট ভিটামিন সি অ্যালার্জি প্রতিরোধ করে, ফলে অ্যালার্জির কারণে যে শ্বাসকষ্ট হয় তা দূর করে।

এছাড়াও সজনে ডাটা কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে, লিভার ও কিডনি সুরক্ষিত রাখে। শরীরের বাড়তি ওজন কমাতে সাহায্য করে সজনে।

লেখক: নূর ই জান্নাত ফাতেমা’

ক্লিনিক্ল্যাল নিউট্রিশিয়ানিস্ট, প্রাভা হেলথ।