গুলশানের এই স্পা সেন্টারে চলছিলো ‘অনৈতিক কার্যক্রম’

প্রকাশিত: ৬:২৮ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৬, ২০২১ | আপডেট: ৬:২৮:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৬, ২০২১
ছবি: সংগৃহীত

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) গুলশান-২ নম্বরে জাহেদ প্লাজার ৫ম তলায় অবৈধভাবে চলা একটি স্পা সেন্টারে অভিযান পরিচালনা করেছে। যেখানে ‘অনৈতিক কর্মকাণ্ড’ চলতো বলেও অভিযোগ রয়েছে।

মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) দুপুর ২টার দিকে ‘হিলটন থাই স্পা অ্যান্ড সেলুন’ নামে ওই প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালানো হয়। স্পা সেন্টারটিতে অভিযান পরিচালনা করতে গেলে

গেটে নক করতে থাকলেও কোনো সাড়া শব্দ নেই। এরপর তালা-চাবির এক মিস্ত্রিকে এনে গেটটি খোলা হয়।

এসময় স্থানীয় একব্যক্তি জানান, এ ভবন থেকে বের হয়ে যাওয়ার পেছনের দিকে আরও একটি গেট রয়েছে। ওইদিক দিয়ে গোপনে বের হয়ে যাওয় যায়। সেই তথ্য পেয়ে পেছনের দিকে গিয়ে ঘটনার সত্যতা মেলে। ততক্ষণে স্পা সেন্টেরর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষসহ কাস্টমাররা পেছনের গেট দিয়ে বের হয়ে গেছে।

এবার অভিযান পরিচালনাকারী টিম ঢুকে পড়ে স্পা সেন্টারের ভেতরে। সেখানে তারা দেখতে পান— ভেতরে সিঙ্গেল সিঙ্গেল সব রুম, আর সেই রুমগুলোর সঙ্গে এটাস্ট বাথরুম। সাজানো আছে স্পা সেন্টারের টাওয়েল, লোশনসহ অন্যান্য সব উপকরণ। সেখানে আজকের তারিখের কাস্টমার রিসিটও পাওয়া যায়। তবে সংশ্লিষ্ট কাউকে খুঁজে পায়নি ডিএনসিসির অভিযান পরিচালনাকারী দল।

অভিযান পরিচালনাকারী ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা (উপসচিব) মোহাম্মদ আবদুল হামিদ মিয়া বলেন, আমরা নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করার সময় খবর পাই পাশেই একটি স্পা সেন্টার। নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে এইসময় প্রতিষ্ঠান খোলা রেখে কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। সেই সংবাদের ভিত্তিতে এখানে এসে দেখি তারা গেট বন্ধ রেখেছে। আমাদের আসার খবরে পেছনের গেট দিয়ে পালিয়েছে। ভবন মালিক এবং মিস্ত্রিকে ডেকে লক ভাঙার পর ভেতরে ঢুকে দেখলাম পরিবেশটা এমন যে এখান ‘অনৈতিক কার্যক্রম’ পরিচালিত হচ্ছিলো বলে বোঝা যাচ্ছে। এখানের সব কিছু জব্দ করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেবো। সিসি ক্যামেরা, রেজিস্টার্ড খাতা, ডিভাইস এসব কিছু দেখে আমরা সার্বিক পর্যালোচনা করবো।

এদিকে ওই স্পা সেন্টারে ভেতরে কাউকে না পাওয়ায় প্রাতিষ্ঠানিক বৈধতার তথ্য যাচাই করা সম্ভ হয়নি। তবে ডিএনসিসির পক্ষ থেকে এ বিষয়ে পরে বিস্তারিত জানাবে বলে আভিযানিক দল জানিয়েছে।