গ্রাম আদালতের সুফল পাচ্ছে দেবীগঞ্জের সাধারণ মানুষ

প্রকাশিত: ৪:১৬ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২০, ২০১৯ | আপডেট: ৪:২২:অপরাহ্ণ, আগস্ট ২০, ২০১৯

রাহাত হাসান রনি, দেবীগঞ্জ (পঞ্চগড়) প্রতিনিধি: গ্রামের মানুষের আইনগত প্রতিকার পাওয়ার সবচেয়ে কছের আশ্রয়স্থল হচ্ছে গ্রাম আদালত। কম খরচে অল্প সময়ে গ্রামে ঘটে যাওয়া ছোট খাট অপরাধের বিচার নিষ্পত্তির জন্যই গ্রাম আদালত।

এগুলোর মধ্যে রয়েছে চুরি, ঝগড়া-বিবাদ, মারামারি, পাওনা টাকা আদায়,স্থাবর সম্পত্তি দখল, পুঃউদ্ধার সংক্রান্ত ও মূল্য আদায় সহ বিভিন্ন ধরনের অপরাধ গ্রাম আদালতের মাধ্যমে নিষ্পত্তি করা হয়।গ্রাম আদালত আইন ২০১৩ (সংশোধন) এর আলোকে ছোট ছোট বিরোধের ক্ষেত্রে ৭৫০০০/- টকা পর্যন্ত ক্ষতিপুরন আদায় কওে এ আদালত।

বাংলাদেশ সরকারের স্থানীয় সরকার বিভাগ, আর্ন্তজাতিক সংস্থা ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন এবং ইউএনডিপি এর সহযোগিতায় বাস্থবায়ন সহযোগি সংস্থা ইকো সোশ্রাল ডেভলপমেন্ট অর্গানাইজেশন (ইএসডিও) পঞ্চগড় জেলার ৫ টি উপজেলায় উক্ত প্রকল্প বাস্তবায়ন করে আসছে।

এ কাজের মাধ্যমে দেবীগঞ্জ উপজেলায় সাধারণ মানুষ অল্প সময়ে কম খরচে অভাবনীয় সেবা পাচ্ছে। এতে গ্রাম আদালত ঐ এলাকার জনগণের কাছে আস্থা অর্জন করছে। গ্রাম আদালতের বিচারিক প্যানেলে অংশ নিয়ে দায়িত্ব পালন করছেন ৪৮ শতাংশ নারী।

গ্রাম আদালতে মামলা দায়ের করে সুফল পাওয়া দেবীগঞ্জ উপজেলার চেংঠী হাজরাডাঙ্গা ইউনিয়নের রিনা ঋৃষি বলেন আমার বন্দকী জমির পাওনা ৬০,০০০/= টাকা কিছুতেই তুলতে পারছিলাম না , তখন আমি ইউনিয়নের গ্রাম আদালতে মাত্র ১০ টাকা ফি দিয়ে গত ৩০.০৫.১৯ ফৌজদারী মামলা দায়ের করি। এবং গত ১৮.৭.১৯ তারিখে প্রাক বিচারের মাধ্যমে আমি আমার টাকা সম্পূর্ন ফিরে পাই।

একইভাবে জানালেন দেবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নের সাবিনা বেগম। তিনি বলেন আমি আমার হাওলাদি ৭৫,০০০/= টাকা তুলতে পারছিলাম না, প্রতিবাদি আজ দিব কাল দিব বলে সময় নষ্ট করে। তখন আমি উপায় না পেয়ে ১০ টাকা ফি দিয়ে ৫.৭.১৯ তারিখে ফৌজদরি মামলা দায়ের করি ্এবং গত ৮.৭.১৯ তারিখ বিচার নিষ্পত্তির মাধ্যমে ৭৫,০০০/= টাকা ফিরে পাই।

দেবীগঞ্জ উপজেলার দন্ডপাল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জামেদুল ইসলাম জানান যে, এলাকার ছোট খাট বিচার নিষ্পত্তিতে গ্রাম আদালত ব্যাপক ভ’মিকা পালন করে আসছে। এ কার্যক্রম অব্যাহত থাকলে মানুষের বিচার প্রাপ্তির ক্ষেত্রে আস্থা আরও বেড়ে যাবে।

তিনি আরও জানান যে, শুধু ইউনিয়নের মধ্যে নয় ,অনেক সময় উচ্চ আদালত থেকে প্রেরিত মামলাও আমরা নিষ্পত্তি করে থাকি। ছোট ছোট বিরোধ নিষ্পত্তি ও উচ্চ আদালতের মামলার চাপ কমাতে গ্রাম আদালত উল্লেখযোগ্য ভ’মিকা পালন করছে।

বাস্থবায়ন সহযোগি সংস্থা ইএসডিও এর উপজেলা সমন্বয়কারী প্রণব কুমার দেব সিংহ বলেন গ্রাম আদালত সক্রিয়করণ (২য় পর্যায়) প্রকল্পের মাধ্যমে দেবীগঞ্জ উপজেলায় গত জানুয়ারী ২০১৯ থেকে জুলাই ২০১৯ পর্যন্ত ১০ টি ইউনিয়নে ৫৫৭ টি মামলা গ্রহণ করা হয়েছে। তার মধ্যে ৪৭৮ টি মামলা ন্যায় বিচারের মাধ্যমে নিষ্পত্তি করা হয়েছে। চলমান রয়েছে ৭৯ টি মামলা।

দেওয়ানী এবং ফৌজদারি মামলায় সর্বমোট ৯১৯৩০৪ টাকা আদায় করে উপকারভোগীর কাছে দেওয়া হয়েছে।তিনি বলে গ্রাম আদালত বর্তমান সরকারের অন্যতম সাফল্য এবং এই প্রকল্প চলমান থাকলে সাধারণ মানুষ আরও বেশী উপকৃত হবে।

জেলা সমন্বয়কারী রাজিউর রহমান রাজু বলেন পঞ্চগড় জেলার ৪৩ টি ইউনিয়নে গত জুলাই ২০১৭ থেকে জুন ২০১৯ পর্যন্ত মোট ৭৮৫০ টি মামলা দায়ের হয়েছে। তার মধ্যে ৭৫২৮ টি মামলা নিষ্পত্তি গ্রাম আদালতের মাধ্যম নিষ্পত্তি করা হয়েছ্ েও ৩২২টি মামলা চলমান আছে।

এ সকল নিষ্পত্তিকৃত মামলায় ফৌজদারি মামলার ক্ষেত্রে ১১০৯৬৫৪২/= টাকা, দেওয়ানী মামলা নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে ২৫৪৩৯৪০/= টাকা উদ্ধার করে আবেদনকারীগণ ফিরে পেয়েছে।এ ছাড়াও ৮১০.১৩ শতাংশ জমি পূনঃউদ্ধার করা হয়েছে যাহার মূল্য ২৯৩৯৯৩৫/= টাকা। সেই সাথে ২২৭৭.১ শতাংশ জমির পরিবর্তে ১১৭৪৮৭২৯ টাকা ফিরে পেয়েছেন উপকারভোগীগণ।

এ ছাড়াও তিনি বলেন গ্রামের মানুষদের সচেতন করতে বিভিন্ন পর্যায়ে আলোচনা ও মাঠ পর্যায়ে উঠান বৈঠক করা হচ্ছে। এ কার্যক্রমকে চলমান রাখা অত্যন্ত দরকার।