ঘরমুখো মানুষ ঈদের পর হাসপাতালমুখো হবে: ডা. লেলিন

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১:০২ পূর্বাহ্ণ, মে ১২, ২০২১ | আপডেট: ১১:০২:পূর্বাহ্ণ, মে ১২, ২০২১
ডা. লেলিন চৌধুরী। ফাইল ছবি

ঈদযাত্রায় যারা বিভিন্ন ধরনের গণপরিবহন, ফেরিতে ভিড়ে গাদাগাদি করে বাড়ি যাচ্ছেন, ঈদের পর তাদের একটা অংশ হাসপাতালে ভিড় করবেন বলে আশংকা প্রকাশ করেছেন হেলথ অ্যান্ড হোপ স্পেশালাইজড হাসপাতালের পরিচালক ও জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. লেলিন চৌধুরী।

মঙ্গলবার (১১ মে) একটি গণমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এ আশংকার কথা জানান।

ডা. লেলিন চৌধুরী বলেন, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার জন্য আমরা যেসব স্থানকে অতিরিক্ত ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে বিবেচনা করি, তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের গণপরিবহন ও গণজমায়েত।

এবারের ঈদযাত্রা কেন্দ্র করে এই দু’টি বিষয়ই চূড়ান্তভাবে ঘটেছে। বিভিন্ন স্থানে ভিড়, গাদাগাদি অবস্থা, গণপরিবহন বা অন্য পরিবহনে মানুষ ঠাসাঠাসি করে যাত্রা করার ফলে এসব স্থানে করোনা সংক্রমণের জন্য অতি অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে।

‘এ কারণে আমরা আশঙ্কা করছি ঈদের পরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের হার দ্রুত বেড়ে যেতে পারে এবং সেই বেড়ে যাওয়াটা আমাদের হাসপাতাল ও অক্সিজেনের যে সামর্থ্য সেটাকে অতিক্রম করতে পারে। একই কারণেই স্বাস্থ্যমন্ত্রী সম্প্রতি বলেছেন, এবারের ঈদযাত্রা হচ্ছে আত্মহত্যার শামিল।’

এ জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ বলেন, ঈদযাত্রায় যাত্রার বিষয়টি আমাদের আগে থেকেই গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত ছিল। জনসাধারণের ঈদযাত্রার বিষয়টি যদি আমরা অনুমোদন করতাম, তাহলে সেই অনুযায়ী একটি স্বাস্থ্যসম্মত ব্যবস্থা নেওয়া উচিত ছিল।

‘অপরদিকে যদি ঈদযাত্রা বন্ধ করতে চাইতাম তাহলে সেটিও সঠিক পদক্ষেপ নিয়ে বন্ধ করা উচিত ছিল। কিন্তু এই দ্বিমুখী অপরিপক্ব সিদ্ধান্তের ফলে সবকিছুই হ-য-ব-র-ল হয়ে গেল। করোনার সংক্রমণ আরো ছড়িয়ে পড়ার পরিবেশ সৃষ্টি হলো। ’

তিনি আরো বলেন, ইতোমধ্যে দেশে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়েছে। যা অতি সংক্রমণশীল। এসব ভীড়ের মধ্যে যদি কেউ ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট দ্বারা আক্রান্ত থেকে থাকেন, তাহলে অবস্থা আরো বেগতিক হবে। সুতরাং এখন যারা গণপরিবহনে, ফেরিতে ভিড় করছে, এদের একটা অংশ ঈদের পরে হাসপাতালেই ভিড় করবে বলে আমরা আশঙ্কা করছি।

সৌজন্যে: বাংলানিউজ