ঘুরতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি ফেরার পথে তরুণীকে ধর্ষণ!

ধর্ষক গ্রেফতার

প্রকাশিত: ৮:১৬ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৭, ২০১৯ | আপডেট: ৮:১৬:অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৭, ২০১৯
প্রতিকী ছবি

পর্যটনখ্যাত সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের সীমান্তবর্তী ট্যাকেরঘাট চুনাপাথর খনি প্রকল্প এলাকায় থাকা শহীদ সিরাজ লেক (নিলাদ্রী) থেকে বাড়ি ফেরার পথে এক তরুণীকে ধর্ষণের ঘটনায় মিজানুর রহমান (২২) নামে এক ধর্ষককে গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ।

শনিবার দুপুরে উপজেলার বড়দল উওর ইউনিয়নের মাহারাম গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। সে একই উপজেলার একই ইউনিয়নের শান্তিপুর গ্রামের আব্দুর রশীদের ছেলে।

পুলিশ ও ভিকটিমের পারিবারীক সুত্রে জানা যায়, উপজেলার শান্তিপুর গ্রামের মিজানুর রহমান পার্শ্ববর্তী শান্তিপুর গ্রামের সদ্য স্বামী পরিত্যক্ত ১৯ বছরের এক পিতৃহীন তরুণীকে পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে নিলাদ্রী, বারেকটিলা ও শিমুলবাগানে বেড়াতে নিয়ে যেতে পুর্ব কৌশল অবলম্বন করে শুক্রবার বিকেলে বিকেলে নিজ বাড়ি থেকে নিয়ে যায়।

দিনভর নানা বাহানায় সময় ক্ষেপন করে বেড়ানো শেষে শান্তিপুর গ্রামে নিজ বাড়িতে পৌছে দেয়ার পথে গ্রামের পার্শ্ববতী এক নির্জন বাগানে নিয়ে রাত ১১টার দিকে ওই তরুণীকে জোর পুর্বক ধর্ষণ করে মিজানুর।

ওই সময় নিজের সম্ভ্রম বাঁচাতে তরুণী চিৎকার করলে গ্রামবাসী ঘটনাস্থলে এসে মিজানুরকে আটক করে।

উপজেলার বড়দল উওর ইউনিয়নের স্থানীয় ইউপি সদস্য নোয়াজ আলী জানান, কয়েকমাস পুর্বে পিতৃহীন তরুণীকে অন্যত্র বিয়ে দিলে মিজানুর কৌশলে তাকে স্বামীর ঘরছাড়া করে। এরপর প্রেমের নামে প্রতারণার ফাঁদ পেতে বেড়ানোর কথা বলে বাড়ি থেকে ফুসলিয়ে শুক্রবার ওই তরুণীকে মিজানুর নিয়ে যায় নিলাদ্রী সহ নানা স্থানে কিন্তু বাড়ি পৌছে দেয়ার কথা বলে রাতে নির্জন বাগানে নিয়ে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে তরুণীকে ধর্ষণ করে সে।

তাহিরপুর থানার বাদাঘাট পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মো. আমির উদ্দিন জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রাথমিক তদন্তে ধর্ষণের ঘটনার সত্যতা পেয়ে অভিযুক্ত মিজানুরকে গ্রেফতার করে দুপুরেই থানায় পৌছে দেয়া হয়।

শনিবার রাতে তাহিরপুর থানার ওসি মো. আতিকুর রহমান জানান, এ ব্যাপারে ভিকটিমের নিজেই বাদী হয়ে ধর্ষক মিজানুরের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।