ঘুষ নেয়ার সময় হাতেনাতে ধরা ৩ জন

প্রকাশিত: ৯:৫৩ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৫, ২০১৯ | আপডেট: ৯:৫৪:অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৫, ২০১৯
গ্রেপ্তার খালিশপুর জুটমিলের জিএম মোস্তফা কামাল (লাল দাগ চিহ্নিত)। ছবি: সংগৃহীত

ঘুষের টাকাসহ তিনজনকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এ ছাড়া দুদকের মামলায় গ্রেপ্তার হয়েছেন তিনজন। গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের মধ্যে কাস্টমস পরিদর্শক, সার্ভেয়ার, পুলিশের অবসরপ্রাপ্ত উপপরিদর্শক, সরকারি পাটকলের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) আছেন।

গ্রেপ্তারের বিষয়টি প্রথম আলোকে নিশ্চিত করেছেন দুদকের মুখপাত্র প্রণব কুমার ভট্টাচার্য। তিনি বলেন, আজ মঙ্গলবার দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়।

খালিশপুর পাটকলের জিএম গ্রেপ্তার

খুলনায় ঘুষ নেওয়ার সময়ে হাতেনাতে গ্রেপ্তার হয়েছেন রাষ্ট্রায়ত্ত খালিশপুর জুটমিলের জিএম মোস্তফা কামাল। মিলের গার্ড নুরুল আমিনের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে দুদকের একটি দল আজ মঙ্গলবার দুপুরে নিজ কাযালয়ে ঘুষের ১০ হাজার টাকাসহ তাকে গ্রেপ্তার করে।

অভিযোগ থেকে জানা যায়, চলতি বছরের ৮ এপ্রিল অভিযোগকারী নুরুল আমিনসহ চারজনকে গার্ড হিসেবে নিয়োগ করেন জিএম মোস্তফা কামাল। এ সময় প্রত্যেকের কাছ থেকে তিনি ২০ হাজার টাকা করে মোট ৮০ হাজার টাকা ঘুষ নেন। পরে গত ঈদুল আজহার সময় নুরুল আমিনকে পদ থেকে সরিয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে আরও ১০ হাজার টাকা ঘুষ নেন জিএম। সম্প্রতি মোস্তফা কামাল আবারও ২০ হাজার টাকা ঘুষ দাবি করেন। নুরুল আমিন জিএমকে ১০ হাজার টাকা ঘুষ দিতে রাজি হন।

দুদকের খুলনা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. শাওনা মিয়া জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঘুষ লেনদেনের পর ঘুষের ১০ হাজার টাকাসহ জিএম মোস্তফা কামালকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগে মামলা হয়েছে।

ঘুষ নেওয়ার সময় চট্টগ্রামে কাস্টমস পরিদর্শক গ্রেপ্তার

দুদক জানিয়েছে, চট্টগ্রামের ট্যাক্স জোন-২ এবং ইনকাম ট্যাক্স সার্কেল-৩১-এর পরিদর্শক মো. রেজাউল করিম বেগকে ২০ হাজার টাকা ঘুষসহ গ্রেপ্তার করা হয়েছে। দুদকের চট্টগ্রাম সমন্বিত জেলা কার্যালয়-১-এর উপপরিচালক মোহাম্মদ লুৎফুল কবীর চন্দনের নেতৃত্বে একটি দল তাকে ঘুষের টাকাসহ আগ্রাবাদের পিএইচপি ভবনের অফিস থেকে গ্রেপ্তার করে। তার বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

চায়ের দোকানে বসে ঘুষ নেওয়ার সময় সার্ভেয়ার আটক

জানা গেছে, দিনাজপুর সদর উপজেলার বড়ইল গ্রামের মো. সাইফুদ্দিনের স্ত্রী শাবানা খাতুন জেলা পরিষদের বাঙ্গিবেচা মৌজায় সাড়ে নয় শতক জমি লিজ নেওয়ার জন্য আবেদন করেন। জেলা পরিষদ সেই জমি লিজ দেওয়ার পক্ষে মতামতও দেয়। কিন্তু সার্ভেয়ার আল-আমিন শাবানা খাতুনের কাছে ২০ হাজার টাকা ঘুষ দাবি করেন। এ নিয়ে সমন্বিত দুদক কার্যালয়ে অভিযোগ করেন শাবানা খাতুন। তার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতেই মঙ্গলবার বেলা ১১টা দিকে সেই টাকা নেওয়ার সময় হাতেনাতে ধরা পড়েছেন সার্ভেয়ার মো. আল আমিন।

দুদকের এ অভিযানে অংশ নেন দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপপরিচালক আবু হেনা আশিকুর রহমান, সহকারী পরিদর্শক মো. ওবায়দুর রহমানসহ দুদকের অন্য কর্মকর্তারা।